রবিবার | ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

সাতকানিয়ায় আরো তিন লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত : আগস্ট ১২, ২০২৩




জার্নাল সারাদেশ বার্তা ॥ নেমে গেছে সাতকানিয়ার স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার পানি। সাঙ্গু এবং ডলুনদীর পানিও কমে গেছে। পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে ভেসে উঠছে বন্যার ক্ষত চিহ্নও। বন্যায় ১ শ ৮৩ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।

এদিকে, নৌকাডুবি এবং স্রোতের টানে ভেসে যাওয়া আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকায় এখনো উপজেলার বেশির ভাগ এলাকা অন্ধকারে। উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে এখনো অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

শুক্রবার বিকালে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন এবং ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন।

বন্যাকবলিত এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বন্যার পানি প্রায় সব এলাকা থেকে নেমে গেছে। পানি নেমে গেলেও অধিকাংশ মানুষ ঘরে বসবাস করতে পারছে না। অনেকের বসতঘর ভেঙে গেছে।

কেউ কেউ ঘরে ফিরলেও খাবার তৈরি করতে পারছে না। বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়া ঘরের চুলা এখনো রান্না করার উপযোগী হয়নি। বন্যাকবলিত এলাকার মানুষ খাবার নিয়ে সংকটে রয়েছে। বেশির ভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। ফলে মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে অত্যন্ত মানবেতরভাবে দিনযাপন করছেন।

সরকারি এবং বেসরকারিভাবে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম।

এদিকে, গত মঙ্গলবার চরতিতে নৌকা ডুবে নিখোঁজ হওয়া দুই শিশু এবং বুধবার রাতে স্রোতের টানে ভেসে যাওয়া ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তারা হলো দক্ষিণ চরতির মো. সেলিমের মেয়ে সানজিদা (৬), কাঞ্চনা মিয়ার বাড়ির মো. আরিফের ছেলে শহীদুল ইসলাম (৪) ও কালিয়াইশ চৌধুরী বাড়ির মৃত ফজল আহমদের ছেলে তালতল এলাকার ব্যবসায়ী মো. ইদ্রিচ চৌধুরী (৫০)।

পুরানগড় ইউপি চেয়ারম্যান আ ফ ম মাহবুবুল আলম জানান, বন্যার পানি নেমে গেছে। শুধুমাত্র দুইটি এলাকার কিছুসংখ্যক মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। পানি নেমে গেলেও মানুষের কান্না কিছুতেই থামছে না। এলাকার অনেক মানুষের ঘর ভেঙে গেছে। তাদের মধ্যে অনেকের এ মুহূর্তে ঘর বাঁধার সামর্থ্যও নাই। এছাড়া যারা ঘরে ফিরেছে তারাও এখন খাবার নিয়ে সংকটে আছেন।

পল্লী বিদ্যুতের কেরানীহাট জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. সাইফুল আলম জানান, লোকজন দিনে-রাতে সমানতালে কাজ করছে। কিছু কিছু এলাকায় ইতিমধ্যে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। বাকী এলাকাগুলোতে লাইন চেক করার পর দ্রুত সময়ের মধ্যে সরবরাহ শুরু করার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

তিনি জানান, কোথাও গাছ পড়ে তার ছিঁড়ে গেছে, আবার কোথাও ঘর ভেঙে গেছে, কিছু কিছু বাড়ির মিটার বন্যার পানিতে ভিজে গেছে। এসব চেক না করে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করলে দুর্ঘটনার ঝুঁকি রয়েছে। ফলে দ্রুত সময়ের মধ্যে লাইন চেক করে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হবে।

সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন বিশ্বাস জানান, বন্যার পানি নেমে গেছে। এলাকার অভ্যন্তরীণ সব রাস্তাঘাট ভেসে উঠেছে। পানি নেমে যাওয়ার পর মানুষ ঘরে ফিরতে শুরু করেছে। তবে বন্যাকবলিত এলাকায় এখনো খাবার এবং পানি নিয়ে সংকটে রয়েছে। সরকারি এবং বেসরকারিভাবে ত্রাণ তৎপরতাও চলছে। বন্যাকবলিত এলাকার জন্য জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে এই পর্যন্ত ৬৫ মেট্রিক টন চাল, নগদ ৫ লাখ টাকা, ১ হাজার প্যাকেট সরকারি ত্রাণ, ১ লাখ পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, ৭৫ বান্ডিল ঢেউটিন, ২ লাখ টাকা আর্থিক মজুরি বরাদ্দ পেয়েছি। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন এবং ত্রাণ বিতরণ করেছেন। তিনি প্রয়োজনীয় সকল সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন।

ইউএনও আরো জানান, সকল ক্ষেত্রে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে কৃষি, প্রাণী সম্পদ, জনস্বাস্থ্য, মৎস্য, পিআইও, পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং এলজিইডি অফিসের দেওয়া তথ্য মতে, এসব খাতে প্রায় ১ শ ৮৩ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর