সোমবার | ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

সাম্প্রদায়িক উস্কানির অভিযোগে ঝুমন দাস আবারো গ্রেফতার

প্রকাশিত : আগস্ট ৩১, ২০২২




সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ সুনামগঞ্জের শাল্লায় ঝুমন দাস আপনকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার করেছে শাল্লা থানা পুলিশ। মন্দিরের সামনে মসজিদের দানবাক্স এরকম ফেইসবুকে পোষ্ট শেহার করেন ঝুমন দাস। তারই প্রেক্ষিতে গ্রেফতার হউন ঝুমন।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) মধ্যরাতে শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ঝুমন দাস আপনকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের একটি মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। শাল্লা থানার এসআই সুমন নুর রহমান বাদী হয়ে এই মামলাটি দায়ের করেন বলে জানা যায়।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে ঝুমন দাশকে বাড়ি থেকে ধরে আনে পুলিশ। টানা ১২ঘন্টা তাকে থানায় আটকে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

ঝুমনের ভাই নুপুর দাস বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক উস্কানি দেয়ার অভিযোগে পুলিশ মঙ্গলবার সকাল ১১টায় তাকে থানায় নিয়ে যায়। এর আগে দুই দিন ধরে তাকে ফলো করছিল পুলিশ। তার মোবাইল পুলিশ নিয়ে গেছে এবং কিছু পোস্ট রিমুভ দিয়েছে।

তিনি আরো জানান, মন্দিরের ভেতরে মসজিদের দানবাক্স সংক্রান্ত ফেসবুকে ছড়িয়ে পরা একটি ছবি নিজের আইডি থেকে শেয়ার করেছিলেন ঝুমন। এনিয়ে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়।

এব্যাপারে সুনামগঞ্জ জেলা অতিরুক্ত (ক্রাইম) পুলিশ সুপার আবু সাঈদ সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন ঝুমন দাসের শেয়ার কৃত পোষ্ট ঘিরে আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছিল। পরিস্থিতি খারাপ হবে এরুপ আঁচ করতে পেরে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৫ মার্চ সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ‘শানে রিসালাত সম্মেলন’ নামে একটি সমাবেশের আয়োজন করে হেফাজতে ইসলাম। এতে হেফাজতের তৎকালীন আমির জুনায়েদ বাবুনগরী ও যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক এতে বক্তব্য দেন। ঐ সমাবেশের পরদিন ১৬ মার্চ মামুনুল হকের সমালোচনা করে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন শাল্লার নোয়াগাঁওয়ের ঝুমন দাস। স্ট্যাটাসে তিনি মামুনুলের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অভিযোগ আনেন। মামুনুলের সমালোচনাকে ইসলামের সমালোচনা বলে এলাকায় প্রচার চালাতে থাকেন তার অনুসারীরা। এতে এলাকাজুড়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দারা ১৬ মার্চ রাতে ঝুমনকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

পরদিন বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর সকালে কয়েক হাজার লোক লাঠিসোঁটা নিয়ে মিছিল করে হামলা চালায় নোয়াগাঁও গ্রামে। তারা ভাঙচুর ও লুটপাট করে ঝুমন দাসের বাড়িসহ হাওরপাড়ের হিন্দু গ্রামটির প্রায় ৯০টি বাড়ি, মন্দির। ঝুমনের স্ত্রী সুইটিকে পিটিয়ে আহত করা হয়।

২২ মার্চ, ঝুমনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে শাল্লা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুল করিম। পরবর্তীতে জামিনের জন্য হাইকোর্টে আবেদন করেন ঝুমন দাস। কারাবন্দির ছয় মাস পর জামিনে মুক্তি পান তিনি।

আজকের সর্বশেষ সব খবর