বৃহস্পতিবার | ২৬শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

সিলেটে চলছে ৩ দিনের পরিবহন ধর্মঘট, দুর্ভোগে মানুষ

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২২, ২০২০




সিলেট থেকে : সিলেটে বন্ধ থাকা পাথর কোয়ারিগুলো খুলে দেয়ার দাবিতে বৃহত্তর সিলেট পাথর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকা ৭২ ঘণ্টার পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) ভোর ৬টা থেকে এই ধর্মঘট শুরু হয়। এরফলে সিলেট থেকে সব ধরনের দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। জেলার কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যাচ্ছে না ও কোনো বাস সিলেটে প্রবেশ করছে না। এছাড়া আন্তজেলা বাস চলাচলও বন্ধ রয়েছে।

বিষয়টি সমাধানের লক্ষ্যে সংগঠনটির নেতাদের সাথে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের গতকাল সোমবার (২১ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত বৈঠকে সমাধান না আসায় সিলেট বিভাগে তিনদিনের এ ধর্মঘট কর্মসূচি পালন করবেন পাথর সংশ্লিষ্ট সব শ্রমিক।

ধর্মঘটে একাত্মতা পোষণ করেছে সিলেটের পরিবহন সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংগঠনও।

সিলেট জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, পাথর কোয়ারিগুলো সচল করার দাবিতে আহ্বান করা ধর্মঘটে আমরাও একাত্মতা পোষণ করেছি। ফলে মঙ্গলবার থেকে সিলেটে যাত্রী ও পণ্যবাহী সব ধরনের পরিবহন বন্ধ থাকবে।

ওই বৈঠকের পর মালিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম হাদী ছয়ফুল বলেন, বৈঠক ফলপ্রসূ হয়নি। তিনদিনের ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে। আমরা সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার নেতাদের সাথে আলাপ করেই এ কর্মসূচি দিয়েছি।

পরিবেশ ধ্বংস ও ব্যাপক প্রাণহানির পর সিলেটের পাথর কোয়ারিগুলো থেকে পাথর উত্তোলন নিষিদ্ধ করে খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়। এ সিদ্ধান্তের ফলে পরিবহন ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা সংকটে পড়েছেন দাবি করে পাথর কোয়ারিগুলো খুলে দেয়ার জন্য আন্দোলনে নামে সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ড ভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপ। ধারাবাহিক আন্দোলনের পর মঙ্গলবার থেকে তারা ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে।

এদিকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় গ্রিল সংযোজনের নির্দেশনা প্রত্যাহারসহ ছয় দফা দাবিতে সিলেটে গতকাল সোমবার সকাল থেকে ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট পালন করছেন অটোরিকশা শ্রমিকরা। ধর্মঘটের কারণে সিলেটে বন্ধ রয়েছে অটোরিকশা চলাচল। এ ধর্মঘট চলবে আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত।

এ দুই কর্মসূচির কারণে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে মানুষকে। নগরীর ভেতরে ও আশপাশের এলাকায় চলাচলকারী যাত্রীদের সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়তে হয়।

আজকের সর্বশেষ সব খবর