রবিবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, শহরে হু-হু করে ঢুকছে পানি

প্রকাশিত : মে ১৭, ২০২২




জার্নাল ডেস্ক ॥ বর্ষণ-পাহাড়ি ঢলে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকেল ৪টা পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সুরমা, কুশিয়ারা বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সিলেটের ৬টি ও সুনামগঞ্জের ৬টি মোট ১২টি উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি মারাত্মক রূপ নিয়েছে। হু-হু করে শহরে ঢুকছে পানি। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। দুর্ভোগ বেড়েছে পানিবন্দি মানুষের। নগরীর নিম্নাঞ্চলে বাসিন্দাদের মধ্যে খাবার সঙ্কট দেখা দিয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে সিলেট নগরীসহ বন্যাকবলিত এলাকায়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সুরমা, কুশিয়ারা-সারি, দলাই সবকটা নদ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি উপচে শহরের অভিজাত এলাকা উপশহরে পানি ঢুকছে। নগরীর উপশহর, তেররতন, মেন্দিবাগ, ছড়ার পাড়, সোবহানিঘাট, মাছিমপুর, তালতলা, কালিঘাট, কাজিরবাজার, শেখঘাট, লালাদীঘির পাড়, জামতলাসহ বিভিন্ন এলাকায় পানি ঢুকছে। শহরের ড্রেন ও নালা, ছড়া দিয়ে পানি সুরমায় প্রবাহিত হচ্ছে না। কাজীর বাজারের কাছের নালাসহ বিভিন্ন নালা দিয়ে এখন সুরমার পানি শহরে ঢুকে সয়লাব। পানি ঢুকে পড়েছে বিভিন্ন দোকানপাট ও এলাকার বাসাবাড়িতেও। ফলে অনেকের রান্নাবান্না বন্ধ হয়ে গেছে। গ্রামীণ সড়ক এমনকি জেলা সদরের সঙ্গে উপজেলা সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে পড়েছে।

বন্যায় আগেই সীমান্তবর্তী সিলেটের উপজেলা সদর, কানাইঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জকিগঞ্জ ও জৈন্তাপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। গরু মহিষ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন কৃষক। উপজেলার স্কুলগুলোকে বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র ঘোষণা করা হয়েছে। অনেকেই বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রে যেতে শুরু করেছেন। কানাইঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট উপজেলার সদরের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের নিচতলায় পানি ঢুকে গেছে।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হতে পারে। এরইমধ্যে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন জেলার লক্ষাধিক মানুষ। স্থানীয়দের দাবি, ১৯৮৬ সালের পর এমন বন্যা দেখেননি সিলেট অঞ্চলের মানুষ। এবার সেই রেকর্ডও ছাড়িয়ে যেতে পারে। আজ মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত সুরমা নদীর পানি সিলেট ও কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার প্রায় দেড় সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে, যা আগের দিনের চেয়ে বেড়েছে। বেড়েছে কুশিয়ারা নদীর পানিও।

মাছিমপুরের বাসিন্দা সংবাদকর্মী সুনীল সিংহ জানান, সোমবার রাত নির্ঘুম কাটাতে হয়েছে তাদের। মঙ্গলবার ঘরের ভেতরে হাঁটু পানি। চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের। উপশহর এলাকার বাসিন্দা জুনেদ আহমদ বলেন, আমাদের ঘরের নিচতলা তলিয়ে গেছে। আমরা দোতলায় আশ্রয় নিয়েছি। এমনভাবে পানি বাড়ছে যেন রাতেই মধ্যে আরেক তালা উপরে উঠতে হবে।

এদিকে বন্যাকবলিতদের জন্য নগরীর কিশোরী মোহন ও মাছিমপুর বিদ্যালয়ে আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নুর আজিজুর রহমান জানিয়েছেন নগর ভবন পানিবন্দিদের ব্যাপারে সতর্ক রয়েছে। দ্রুত ত্রাণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের উপ-সহকারী প্রকৌশলী নিলয় পাশা জানান, উজানে প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছে। ফলে নদীর পানি দ্রুত বাড়ছে। এটা সিলেট অঞ্চলের জন্য আতঙ্কের। এই সময়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেন, বন্যার্তদের মধ্যে খাদ্য সহায়তা বিতরণ করা হচ্ছে। বিভিন্ন উপজেলায় আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর