সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

‘সুইস ব্যাংক নিয়ে রাষ্ট্রদূত মিথ্যা বলেছে’

প্রকাশিত : আগস্ট ১১, ২০২২




জার্নাল ডেস্ক ॥ বাংলাদেশ সরকার সুইজারল্যান্ড সরকারের কাছে নির্দিষ্ট করে কারো সম্পর্কে সুইস ব্যাংকে রাখা বাংলাদেশিদের অর্থ জমা নিয়ে নির্দিষ্ট কোনো তথ্য চায়নি। বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ডের বুধবারের (১০ আগস্ট) এমন মন্তব্য নিয়ে বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুর মোমেন বলেছেন, ‘সেটা মিথ্যা কথা বলেছে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুর মোমেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘সেটা মিথ্যা কথা বলেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব আজকে আমাকে জানিয়েছে, তারা আগে সুইস ব্যাংকে অর্থ সংরক্ষণ সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছিলেন কিন্তু তারা (সুইস ব্যাংক) কোনো উত্তর দেয়নি। আজকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব আজকে আমাকে জানিয়েছে যে নো, তারা চেয়েছে কিন্তু জবাব পায়নি। আমি তাদের বলেছি যে তাহলে আপনারা এটা পাবলিককে জানিয়ে দেন। কারণ এভাবে মিথ্যা কথা বলে পার পাওয়া ঠিক হচ্ছে না।’

বিষয়টি নিয়ে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের সাথে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোনো আলাপ করবে কিনা জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘আগে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং অর্থ মন্ত্রণালয় এই ইস্যুতে পাবলিকলি জানাক, তারপর আমরা বিষয়টি দেখব।’

বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচার হয়ে সুইস ব্যাংকে রাখা হচ্ছে এবং বাংলাদেশ সরকার এই পাচার করা অর্থের তথ্য সুইজারল্যান্ড সরকারের কাছে চেয়ে পাচ্ছে না, ডিক্যাব টক অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ডের কাছে গত বুধবার সাংবাদিকরা এমন প্রশ্ন করলে জবাবে রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশ সরকার সুইজারল্যান্ড সরকারের কাছে নির্দিষ্ট করে কারো সম্পর্কে তথ্য চায়নি। সুইজারল্যান্ড ব্যাংকিং সিস্টেমে আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসরণ করে থাকে। সুইজারল্যান্ড এর ব্যাংক থেকে তথ্য পেতে বাংলাদেশ সরকারকে কোন কোন চুক্তি বা সমঝোতা করতে হবে এবং তথ্য পাওয়ার জন্য কী করতে হবে সে বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারকে জানান হয়েছে। তিনি আরও বলেন, সুইজারল্যান্ড কালো টাকা রাখার স্বর্গরাজ্য নয়। সুইস ব্যাংক নিয়ে এখানকার মানুষের কাছে ভুল ধারণা রয়েছে। সুইস ব্যাংক আন্তর্জাতিক সকল প্রক্রিয়া মেনেই কাজ করে। সুইস ব্যাংক প্রতি বছর তাদের বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকে।

জানা গেছে, সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের (এসএনবি) বার্ষিক প্রতিবেদনে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, দুই দশকের মধ্যে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংক বা সুইস ব্যাংকে গত বছর বাংলাদেশিদের সর্বোচ্চ অর্থ জমা হয়েছে। বাংলাদেশি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে এসব অর্থ জমা হয়েছে সুইজারল্যান্ডের একাধিক ব্যাংকে। গত বছর শেষে সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশিদের জমা হওয়া অর্থের পরিমাণ ৮৭ কোটি ১১ লাখ সুইস ফ্রাঁ। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৮ হাজার ২৭৬ কোটি টাকা।

আজকের সর্বশেষ সব খবর