রবিবার | ২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নামে আছে আইসিইউ-সিসিইউ, কাজে নেই!

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৯, ২০২০




রুজেল আহমদ, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতালের তৃতীয় তলার আইসিইউ ও সিসিইউ লেখা পৃথক দু’টি রুম আছে। তবে এসব রুম আজ পর্যন্ত খোলা হয়নি। ২০১৫ সালে তৎকালীন সিভিল সার্জন থেকে শুরু করে বর্তমান সিভিল সার্জন আইসিইউ ও সিসিইউ ইউনিট খোলার জন্য অনেক কাঠখড় পোড়ালেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। জেলা গণপূর্ত বিভাগ জানায়, আইসিইউ ও সিসিইউ ইউনিট খোলার জন্য জেলা পর্যায় থেকে প্রকল্প প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। প্রস্তাব অনুমোদিত হলেও আরও ৭ / ৮ মাস সময় লাগবে প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে।

সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, তৃতীয় তলার একপাশের দু’টি ইউনিটে আইসিইউ ও সিসিইউ লেখা দুটি কক্ষ তালাবদ্ধ। সিসিইউ কক্ষে হাসপাতালের প্রয়োজনীয় সামগ্রী মজুত করা রয়েছে। এই ইউনিটে ৬টি আইসিইউ ও ৮টি সিসিইউ খোলার ব্যবস্থা রয়েছে। তবে আইসিইউ বা সিসিইউয়ের কোনও সেট আপ নেই। এগুলো পরিচালনার জন্য ডাক্তার, নার্সসহ নেই অভিজ্ঞ জনবল। নিজস্ব অক্সিজেন প্ল্যান্ট না থাকায় বড় সিলিন্ডারের চলছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সেবার কার্যক্রম।

সচেতন নাগরিক কমিটির সহসভাপতি খলিল রহমান বলেন, জেলার একমাত্র হাসপাতাল এটি। দুর্গম হাওর বেষ্টিত এলাকার মানুষ এখানে চিকিৎসা সেবা নিতে আসেন। আইসিইউ ও সিসিইউ এর প্রয়োজনীয়তা থাকার পরও দুটি ইউনিট এখানে স্থাপন করা হয়নি। এই হাসপাতালে হৃদরোগের সাধারণ চিকিৎসা পর্যন্ত হয় না। তাই দ্রুত হাসপাতালে আইসিইউ ও সিসিইউ ইউনিট স্থাপন করা প্রয়োজন।

সুনামগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র হোসাইন আহমদ রাসেল বলেন, সদর হাসপাতাল সুনামগঞ্জবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ব্যর্থ। ডাক্তার সংকটের কারণে রোগীরা কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না। চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নের জন্য দামি দামি যন্ত্রপাতি কেনা হয়েছে। কিন্তু এগুলো সাধারণ মানুষের কোনও কাজে লাগছেন না। এই হাসপাতালে এক্সরে ও আল্ট্রাসনোগ্রাম হয় না। এসব পরীক্ষা বাইরে থেকে চড়া দামে করাতে হয়। সরকার শুধু নুতন ভবন নির্মাণ করেই দায়িত্ব শেষ করেছে।

কেন্দ্রীয় কমিটি হাওর বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক বিজন সেন রায় বলেন, ডাক্তার, নার্স ওষুধ সংকটের কারণে হাসপাতালে এসে মানুষ সেবা পায় না। সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা পাওয়া মানুষের মৌলিক অধিকার। এটি যেভাবেই হোক নিশ্চিত করতে হবে।

সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক রফিকুল ইসলাম বলেন, জনবল সংকটের কারণে দীর্ঘদিন ধরে এক্সরে ও আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন বন্ধ রয়েছে। অন্যান্য মেশিন দিয়ে নিয়মিত সেবা দেওয়া হচ্ছে। মানুষের সেবা না পাওয়ার অভিযোগ সঠিক নয়। তবে তাদের চাহিদা মতো সেবা দেওয়া যায় না। সিভিল সার্জন শামছ উদ্দি বলেন, একটি আইসিইউ সিসিইউ ইউনিটে অনেক মেশিনারিজ থাকতে হয় এখানে তো ইউনিট খোলা হয়নি তাই কিছুই নেই। এই হাসপাতালে আইসিইউ ও সিসিইউ ইউনিটের কোনও সেটআপ নেই। আইসিইউ-সিসিইউ ইউনিট স্থাপনের জন্য বারবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। এখন পযর্ন্ত কোনও কিছু হয়নি।

সুনামগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আল আমিন বলেন, আইসিইউ ও সিসিইউ ইউনিট স্থাপন সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। এই হাসপাতালে আইসিইউ ও সিসিইউ ইউনিট স্থাপনের জন্য প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। অফিসিয়াল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে বেশ সময় লাগে। তবে কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব সব প্রক্রিয়া অনুসরণ করে হাসপাতালে এ দুটি ইউনিট স্থাপন করা হবে।

এই বিভাগের আরো নিউজ

মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে হলে খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করতে হবে: জি কে গউছ
জনপ্রিয়তা হারানো বিএনপি পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায়: এমপি আবু জাহির
শেষ ওভারে জিতলো অস্ট্রেলিয়া
শাহবাগে ‘গণঅনশন ও অবস্থান’ কর্মসূচিতে ৮ দফা দাবি
ইকবালের বিষয়ে ফখরুলের কাছে তথ্য আছে: ওবায়দুল কাদের
আজকের সর্বশেষ সব খবর