শুক্রবার | ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমাদের অনেক অর্জন থাকলেও নদী রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছি: বাপা

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৬, ২০২১




স্টাফ রিপোর্টার॥ ব্যাতিক্রমী আয়োজনের মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বিজয় দিবস উদযাপন করেছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপা হবিগঞ্জ জেলা শাখা ও খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার।

মুক্তিযুদ্ধে নদী ও নদীর জন্য মুক্তিযুদ্ধ শিরোনামে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে হবিগঞ্জের আন্তঃসীমান্ত খরস্রোতা নদী খোয়াই এর বুকে।

বৃহস্পতিবার (১৬ ডিসেম্বর) বিকেলে খোয়াই নদীর বুকে ভাসমান নৌকায় নদীপ্রেমিক লোকজন ও এলাকার নদী নির্ভরশীল মানুষের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিত হয় এই ব্যাতিক্রমী আলোচনা সভাটি।

মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে এদেশের শত শত নদী প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষা হিসেবে কাজ করেছে। এ প্রেক্ষিতে মুক্তিযুদ্ধে নদীর ভূমিকা ও স্বাধীনতার ৫০ বছরে নদীগুলো কীভাবে ধ্বংস করা হয়েছে তা উঠে আসে বাপা ও খোয়াই রিভারওয়াটার কিপারের মহান বিজয় দিবসের আলোচনায়।

বাপা সদস্য আফরোজা ছিদ্দিকার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিক্যাল স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ও বাপার জাতীয় কমিঠির সদস্য ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক শাকিল, হবিগঞ্জ বাপার সাধারন সম্পাদক ও খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার তোফাজ্জল সোহেল, বাপা সদস্য ডাঃ আলী আহসান চৌধরী পিন্টু, অ্যাাডভোকেট শায়লা খান, তানভীর আহমেদ, সাইফুল ইসলাম, আল- আমীন, শিক্ষার্থী তাহসিন বিলওয়াল আরিয়ান, তালহা হোসেন, তাবাসসুম জাহান আরিদা, নদী পাড়ের তৈয়ব আলী, শাকিল মিয়া, অনু মিয়া, প্রমূখ।

ব্যতিক্রমী আলোচনায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক শাকিল বলেন, বাংলাদেশ নদী মাতৃক দেশ। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের স্লোগান ছিল তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা মেঘনা যমুনা। ১৯৭০’র নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক ছিল নৌকা। আর নৌকার বিজয়েই আমাদের স্বাধীনতা প্রাপ্তি তরান্বিত হয়। নৌকা প্রতীক মূলতঃ আমাদের নদীমাতৃক দেশকেই চিত্রায়িত করে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বেশীর ভাগ অপারেশন হয়েছে নদগুলোতে। আবার এ নদীগুলোতেই ৩০ লক্ষ শহিদের বেশীর ভাগ লাশ ভেসে গেছে, নদীগুলো তাদের রক্তে রঞ্জিত হয়েছে। জালের মতো বিছিয়ে থাকা নদীগুলোর জন্য পেশাদারী পাঞ্জাবী বাহিনী আমাদের গেরীলা যুদ্ধের প্রতিহত কৌশল প্রণয়ন করতে পারেনি। ফলে আমাদের গেরীলা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে তারা পরাজিত হয়। শাকিল আরো বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমাদের অনেক অর্জন থাকলেও নদী রক্ষায় ব্যর্থ হয়েছি। তাই এবার নদীর জন্য মুক্তিযুদ্ধ প্রয়োজন।

হবিগঞ্জ বাপার সাধারন সম্পাদক ও খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার তোফাজ্জল সোহেল বলেন, নদী ও আমাদের মুক্তিযুদ্ধ একে অপরের পরিপূরক। মুক্তিযুদ্ধকালীন নদীপথ ছিল আমাদের সহজ ও নিরাপদ যোগাযোগ মাধ্যম। আমাদের নদীগুলো অনবদ্য ভূমিকা পালন করেছে মুক্তিযোদ্ধাদের রসদ পরিবহনে। তাই নদীর প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। নদীর ঋণ শোধ করা উচিত। কিন্তু স্বাধীনতার ৫০ বছর পর আমাদের দুঃখ হয় যখন দেখি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানী বাহিনীর অপারেশনে আমাদের নদীগুলো যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ঠিক এখনও বাংলাদেশের অনেক নদী দখল দূষনে সংকটাপূর্ণ। তোফাজ্জল সোহেল আরো বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুকিতে থাকা বাংলাদেশের অগ্রাধিকারমূলক কাজ হওয়া উচিত নদীগুলো দখল-দূষনের হাত থেকে রক্ষা করা। এটিই হচ্ছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।

আজকের সর্বশেষ সব খবর