সোমবার | ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

হবিগঞ্জে বাড়ছে শীত, বেড়েছে গরম কাপড় বিক্রি

প্রকাশিত : জানুয়ারি ৪, ২০২৩




জার্নাল প্রতিবেদক ॥ শীতের ছোঁয়ায় হবিগঞ্জে লেগেছে উষ্ণতার পরশ। পৌর এলাকার হকার্স মার্কেটে জমে উঠেছে গরম কাপড়ের বেচাকেনা। বিভিন্ন ধরনের গরম কাপড় সাজিয়ে বসেছেন ব্যবসায়ীরা। সেসব কাপড় কিনতে ভিড় করছেন ক্রেতারা।

মঙ্গলবার(৩রা জানুয়ারি) সকালে গিয়ে হকার্স মার্কেটে এমন চিত্র দেখা যায়।

নিম্ন ও মধ্যবিত্তদের শীতের কাপড়ের চাহিদা মেটাতে সেখানে রয়েছে অর্ধশতাধিক দোকান। এসব দোকানে সোয়েটার, জ্যাকেট, কানটুপি, মাফলার, হাত ও পায়ের মোজা, কম্বল ইত্যাদি বিক্রি হচ্ছে। শিশুসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের শীত নিবারণ আর ঘরে পরার জন্য অল্প দামে গরম কাপড় কিনতে এসেছেন তারা। উচ্চবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের নতুন পোশাক ক্রয়ের সামর্থ্য থাকলেও সে সাধ্য নেই নিন্মবিত্তের ভাগ্যে। তাই তারা ভীড় করছেন ফুটপাতে বসা পুরোনো পোশাকের দোকানে।

শহরের পৌর হকার্স মার্কেট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গরীবের হকার্স মার্কেট হিসেবে পরিচিত সেখানে অর্ধশতাধিক দোকান রয়েছে। এ স্থানের প্রতিটি দোকানই জমে ওঠেছে কেনাকাটা। দেখেশুনে ক্রেতারা গরম কাপড় কিনছেন নিজের জন্য এবং পরিবারের অন্য সদস্যদের জন্য। সাধারণত এসব ফুটপাতে ১শ থেকে ৫শ টাকার মধ্যে শুরু হয় বিভিন্ন গরম কাপড়ের দাম। তবে মার্কেট ও ব্র্যান্ডভেদে দামের বিভিন্ন ফারাক রয়েছে শহরের মার্কেটগুলোতে। প্রতিদিন প্রতিটি দোকানে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকার কেনাকাটা হচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

শীতের কাপড় কিনতে আসা রিকশা চালক মোশাহিদ আলী ও বাবুল মিয়া বলেন, আমরা গরীব তাই আমাদের বেশি দামের পোশাক কেনার সামর্থ্য নেই। বর্তমানে সংসার চালাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে। তাই ফুটপাতের পোশাকই আমাদের একমাত্র ভরসা। এসব কাপড় কিছুটা পুরাতন হলেও শীত নিবারনে আমাদের ভালো কাজ দেয়।

শিক্ষক সাজিদুর রহমান জানান, শীতের তীব্রতা বাড়ছে, তাই পুরাতন মার্কেট আসা। পুরাতন মার্কেট কম দামে অনেক ভালো শীতের পোশাক পাওয়া যায়। তাই স্বল্প দামে নিজের জন্য ও পরিবারের জন্য কিছু শীতের পোশাক কিনলাম।

বিক্রেতা ফজলু মিয়া বলেন, আমরা সাধারণত সোয়েটার, ট্র্যাকশুট, বিভিন্ন ধরণের গরম জামা, মোজা, টুপি, বাচ্চাদের কাপড়, প্যান্ট-কোট, চাঁদর, কম্বল, ট্রাউজারসহ বিভিন্ন ধরণের শীতের কাপড় বিক্রি করে থাকি। তবে গত বছর গুলোতে করোনা অস্থিরতার কারণে আমাদের শীতবস্ত্রের বেচাকেনা কম ছিল। আশা করছি, এবার ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর