শনিবার | ২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

হবিগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ

প্রকাশিত : এপ্রিল ১৫, ২০২১




জার্নাল প্রতিবেদক : হবিগঞ্জের শহরতলীর পোদ্দারবাড়িতে ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারী মাসের পরিক্ষার ফলাফল অনুযায়ী ১ম স্থান যৌথভাবে আবু বক্কর বিন আবুল হক ও মুজাহিদ চৌধুরী, ২য় স্থান অধিকার করে মোঃ ফরহাদ মিয়া এবং ৩য় স্থান অধিকার করে মঈনুল ইসলাম।

ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা কেন্দ্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এখানে শিক্ষা দান সহ সকল শিক্ষা উপকরণ যেমন কায়দা, আ’মপারা, কোরআন মাজিদ, রেহাল, খাতা, পেন্সিল, রাবার বিন্যামূল্যে দেয়া হয়। এখানে ৫ বছর থেকে ১৩ বছর বয়সের শিশু সহ সকল বয়সের মানুষদের কোরআন মাজিদ শিক্ষা দেয়া হয়। ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা কেন্দ্রের লক্ষ্য হলো সরকারি মক্তবের পাশাপাশি সুবিধাবঞ্চিত, অসহায়, সকল বয়সের মানুষ তথা চাকুরীজিবী, দিন-মজুর মুসলিম নর নারীকে বিনামূল্যে ইসলামি শিক্ষা প্রদান করা। প্রতিমাসে পরিক্ষা নেয়া হয় এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। মাসে সর্বচ্চো সংখ্যক দিন উপস্থিত থাকার জন্য পুরস্কৃত করা হয়। উক্ত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী এবং সমাজসেবক এস এম জাহেদুল হক, ম্যানেজিং ডিরেক্টর, সেরাজাম হবিগঞ্জ।

অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা কেন্দ্রের সেক্রেটারি মাসুদ আহমেদ, ডিরেক্টর, হেড স্ট্রার্ট, উপস্থিত ছিলেন মোঃ আল আমিন, সহকারী ট্রেজারার, অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা কেন্দ্রের উদ্দ্যোক্তা ও সভাপতি এম সাজিদ হোসেন, চেয়ারম্যান, সাজিদ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, আরও উপস্থিত ছিলেন উক্ত শিক্ষা কেন্দ্রের মহতামিম, শায়খ আব্দুল আওয়াল। উক্ত অনুষ্ঠানে বিতরণকৃত পুরস্কার স্পন্সর করেন হাজি সাবু এণ্ড সন্স, হবিগঞ্জ।

ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা আবির্ভাবের উৎসঃ

শিক্ষা ইসলামের প্রাথমিক মৌলিক বিষয়াবলির অন্তর্ভুক্ত। আদি শিক্ষক হলেন স্বয়ং আল্লাহ তাআলা। তাই ফেরেশতারা বলেছিলেন, ‘হে আল্লাহ, আপনি পবিত্র! আপনি যা শিখিয়েছেন, তা ছাড়া আমাদের আর কোনো জ্ঞান নেই; নিশ্চয়ই আপনি মহাজ্ঞানী ও কৌশলী।’ (সুরা-২ বাকারা, আয়াত: ৩২)।

শিক্ষা ও জ্ঞানার্জনের জন্য পঠন-পাঠন অন্যতম মাধ্যম। আমাদের প্রিয় নবী (সা.)–এর প্রতি ওহির প্রথম নির্দেশ ছিল, ‘পড়ো, তোমার রবের নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেন, সৃষ্টি করেছেন “আলাক” থেকে। পড়ো, তোমার রব মহা সম্মানিত, যিনি শিক্ষাদান করেছেন লেখনীর মাধ্যমে। শিখিয়েছেন মানুষকে, যা তারা জানত না।’ (সুরা-৯৬ আলাক, আয়াত: ১-৫)।

মুসলিম বিশ্বের খ্যাতনামা আলেম ও ফকীহরা তাদের বাল্যকালে এসব মক্তবেই প্রাথমিক শিক্ষা নিয়েছেন। ইমাম শাফেয়ী নিজের বাল্যকালের কথা বলেছেন, ‘আমি ছিলাম এতীম। আমার মা আমাকে মক্তবে ভর্তি করেন। কোরআনুল কারীম খতম করার পর আমি মসজিদে প্রবেশ করি এবং উলামায়ে কেরামের মজলিসে বসি। ইবনে আব্দুল বার ‘জামেউ বায়ানিল ইলমি ওয়া ফাদলিহি’তে এই বর্ননা এনেছেন।

ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষার উদ্দেশ্য ঃ- ইসলামে শিক্ষার উদ্দেশ্য হলো আদম সন্তানকে মানুষরূপে গড়ে তোলা। যে শিক্ষা আত্মপরিচয় দান করে, মানুষকে সৎ ও সুনাগরিক হিসেবে গঠন করে এবং পরোপকারী, কল্যাণকামী ও আল্লাহর প্রতি অনুরাগী হতে সাহায্য করে, সে শিক্ষাই প্রকৃত শিক্ষা। শিক্ষা মানুষের অন্তরকে আলোকিত করে, অন্তর্দৃষ্টি উন্মোচিত করে, দূরদর্শিতা সৃষ্টি করে। তাই আল্লাহ তাআলা বাবা আদম (আ.) কে সৃষ্টি করে প্রথমে তাঁর শিক্ষাব্যবস্থা করলেন। কোরআনের বর্ণনায়, ‘আর আল্লাহ তাআলা আদমকে সকল বস্তুর পরিণতি শেখালেন।’ (সুরা-২ বাকারা, আয়াত: ৩১)। যে জ্ঞানের মাধ্যমে মানুষের অন্তর হিংসা, বিদ্বেষ ও ঘৃণা থেকে মুক্ত হয়ে ভালোবাসায় পরিপূর্ণ হয়, তা–ই ইসলামি শিক্ষা।

” ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা ” নামকরণ করার অন্যতম কারণ হচ্ছে আমাদের এই শিক্ষা কার্যক্রম নির্দিষ্ট কোন স্থানে সীমাবদ্ধ নই। বাংলাদেশের যে কোন এলাকার মানুষের চাহিদা অনুযায়ী, নির্দিষ্ট সময়ে আমাদের সেচ্চাসেবি টিম একজন আরবি শিক্ষক এবং শিক্ষা উপকরণ নিয়ে হাজির হয়ে যাবে শিক্ষা দানের উদ্দেশ্যে। তাই এর নামকরণ করা হয়েছে ” ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা “। বর্তমানে ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা ২ টি জায়গায় পরিচালিত হচ্ছে একটি হচ্ছে হেড স্ট্রার্ট (২ শিফটে-দুপুর এবং সন্ধায় ৩ দিন) অপরটি চৌধুরী টিম্বার, পশ্চিম্ভাদৈ মসজিদের কাছে, পোদ্দারবাড়ি। আমাদের পরিকল্পনা সমস্ত বাংলাদেশে পরিচালনা করা। আমাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হচ্ছে কোরআন মাজিদ শিক্ষা মানুষের দ্বার গোড়ায় পৌছিয়ে দেয়া। সকল বয়সের পুরুষ-মহিলাদের দ্বীনি শিক্ষা দেয়ার মাধ্যমে সমাজ থেকে দ্বীনের বিষয়ে অজ্ঞতার অন্ধকার দূর করা।

বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

আমাদের এই কার্যক্রমের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ” কোরআন মাজিদ শিক্ষা শেষে শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবারা পরিবেশন করা হয়। সবজি খিচুড়ি,বিরিয়ানি, ডিম খিচুড়ি দেয়া হয়। বিভিন্ন ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতায় খাবার কার্যক্রম অব্যাহত থাকে সারা মাস জুড়ে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অবদান হচ্ছে জাহিদুল হক, এমডি, সেরাজেম হবিগঞ্জ, জেসি রহমান, স্বত্বাধিকারী, জেসি’স কিচেন হবিগঞ্জ, মুহাম্মদ আলী, ট্রেজারা, মাসজিদে খাদিজাতুল কুবরা (রাঃ) বাংলাদেশ আরও অনেকে।

ভ্রাম্যমাণ কোরআন মাজিদ শিক্ষা সৎ ও আল্লাহ ভীরু ব্যাক্তিদের দ্বারা পরিচালিত হয়ে আসছে। উক্ত দ্বীনি কার্যক্রমের উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য হচ্ছেন প্রফেসর রফিক আলী, এমপি আবু জাহির মডেল কলেজ, লাখাই, জাকারিয়া চৌধুরী, জেনারেল সেক্রেটারি, জেদ্দা যুবলীগ, এম সাজিদ হোসেন, সভাপতি, মাসুদ আহমেদ, সেক্রেটারি, মুহাম্মদ আলী ট্রেজারার, মোঃ আল আমিন, সহকারী ট্রেজারার এবং শায়খ আব্দুল আওয়াল, মুহতামিম

এই বিভাগের আরো নিউজ

হবিগঞ্জে শুভসংঘকে শক্তিশালী সংগঠনে রুপ দেয়ার প্রত্যয়
খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির দোয়া মাহফিল
অন্য ধর্মের মানুষকে সুরক্ষা নিশ্চিতের শিক্ষা দেয় ইসলাম: এমপি আবু জাহির
হবিগঞ্জে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (ভিডিওসহ)
হবিগঞ্জে সনাতনধর্মী হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করলেন জেলা প্রশাসক
আজকের সর্বশেষ সব খবর