শনিবার | ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

হবিগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশনে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত; দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভীর

প্রকাশিত : অক্টোবর ৩, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ ধর্মীয় রীতিনীতি ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে হবিগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশন ও সেবাশ্রমে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল ১০টায় পুজা শুরু হয়ে শেষ হয় ১০টা ৪৫ মিনিটে। পূজা শুরুর আগে কুমারীকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরানো হয়। হাতে দেওয়া হয় ফুল, কপালে সিঁদুরের তিলক ও পায়ে আলতা। যথাসময়ে সজ্জিত আসনে বসিয়ে পূজা করা হয় কুমারী মাকে। এসময় শঙ্খ, উলুধ্বনি আর মায়ের স্তুতিতে মুখরিত হয় চারদিক। দূর্গাপুজার মহাঅষ্টমীর দিন প্রতি বছর ১ থেকে ১৬ বছরে বয়সী কিশোরীকে দেবীরূপে পূজা করা হয়।

এ বছর হবিগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশনে কুমারী হিসেবে পুজিত হয়েছেন মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়ার ৮ বছর বয়সী মিষ্টু ভট্টাচার্য্য সুকন্যা। শাস্ত্রীয় নামকরণ করা হয় কুঞ্জিকা। কুমারী পূজায় হবিগঞ্জ শহর ও আশপাশের গ্রাম থেকে নারী-পুরুষ-শিশু মিশন প্রাঙ্গণে ভিড় করেন। দেশ ও মানুষের মঙ্গল কামনায় প্রার্থনা করা হয়। এদিকে, জেলার বাহুবল উপজেলার পূর্ব জয়পুরে শ্রী শ্রী শচী অঙ্গন ধামে অনুষ্ঠিত হয় কুমারী পূজা। এতে অংশ নেয় হিন্দু ধর্মাবলম্বী শত-শত নারী পুরুষ। রামকৃষ্ণ মিশনের মতো শচী অঙ্গন ধামেও দেশ ও মানুষের মঙ্গলে প্রার্থনা করা হয়।

হবিগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী বেদময়ানন্দ জানান, কুমারি পূজার অর্থ হলো নারী শক্তিকে পূজা করা, মায়ের রূপকে পূজা করা। আমাদের মাঝে যত কাম, ক্রোধ, লোভ, লালসা দূর করে অসুরের বিনাশ ও পবিত্র মানুষদের রক্ষা করেন মায়ের কাছে এই প্রার্থনা করি। তিনি বলেন, কুমারী পূজা উপলক্ষে রামকৃষ্ণ মিশনে হবিগঞ্জের পাশাপাশি কিশোরগঞ্জ, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলার হাজারো নারী-পুরুষ ভিড় করেন। প্রশাসনের সহযোগিতায় শান্তিপূর্ণভাবে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার (ওসি) গোলাম মর্তুজা জানান, কুমারী পূজায় বাড়িত নিরাপত্তা দেওয়া হয়ে থাকে। সকাল থেকেই রামকৃষ্ণ মিশনের অতিরিক্ত পুলিশের মাধ্যমে নিরপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। সবার সহযোগিতায় শান্তিপূর্ণভাবেই এবারও কুমারী পূজা সম্পন্ন হয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশী টহল ছাড়াও সাদা পোষাকে নজরদারি রয়েছে সার্বক্ষণিক।