সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

হামলা হামলা আর পুলিশের গুলির ভয় উপেক্ষা করেই আমরা বিএনপি করি: জি কে গউছ

প্রকাশিত : আগস্ট ১২, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- বিএনপির নেতাকর্মীরা জীবন দিবে তবুও রাজপথ থেকে পালাবে না। জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে শেখ হাসিনার পতন নিশ্চিত করেই বিএনপি ঘরে ফিরবে। হামলা হামলা আর পুলিশের গুলি’র ভয় উপেক্ষা করেই আমরা বিএনপি করি। বিএনপি বাংলাদেশের সবচেয়ে বৃহৎ রাজনৈতিক দল। বাংলাদেশের মানুষ বিএনপিকে ভালবাসে, হৃদয়ে লালন করে, বিশ্বাস করে। তাই দেশের জনগণ বিএনপিকে রাষ্ট ক্ষমতায় দেখতে চায়। আওয়ামীলীগকে আর এক সেকেন্ডের জন্যও মানুষ ক্ষমতায় দেখতে চায় না।

তিনি শুক্রবার বিকালে শায়েস্তানগরস্থ বিএনপির কার্যালয়ের সামনে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, নজীরবিহীন লোডশেডিং, গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি, ভোলায় পুলিশের গুলিতে আব্দুর রহিম ও নুরে আলম হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে জি কে গউছ আরও বলেন- দেশকে বাচাঁতে হলে, দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত করতে হবে। দেশের মানুষের ভোটাধিকার হরণ করে, গণতন্ত্রকে হত্যা করে আওয়ামীলীগ দেশের ক্ষমতা দখল করে আছে। এই সরকার দেশ পরিচালনায় সর্বক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছে। দুঃশাসন আরও লুটপাটের মাধ্যমে দেশকে দেউলিয়াত্বের দ্বারপ্রান্থে নিয়ে গেছে। এই সরকার দেশকে ধ্বংস করে দিয়েছে। দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে গেছে। যে কারনে রিজার্ভ শূন্য হয়ে যাচ্ছে। এই অবস্থায় সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারছে না। জ্বালানি তেল আমদানী করতে পারছে না। তাই সরকার তাদের ব্যর্থতা আড়াল করতে নজিরবিহীন লোডশেডিং দিচ্ছে। রাতের আধারে তেলের দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়িয়ে দিয়েছে। তেলের দাম বাড়ার কারণে পরিবহনের ভাড়া বেড়েছে, দ্রব্যমূল্য বেড়েছে। শুধু বাড়েনি মানুষের আয়। এই অবস্থা চলতে থাকলে দেশের মানুষকে না খেয়ে মরতে হবে।

জি কে গউছ বলেন- পুলিশ আমাদের প্রতিপক্ষ না। কিন্তু আওয়ামীলীগ সু-কৌশলে পুলিশকে আমাদের প্রতিপক্ষ বানাতে চায়। কারণ রাজনৈতিকভাবে বিএনপিকে মোকাবেলা করতে আওয়ামীলীগ ব্যর্থ হয়েছে। আওয়ামীলীগ আইন শৃংখলা বাহিনীকে কাজে লাগিয়ে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে আছে।

তিনি পুলিশকে উদ্দেশ্য করে বলেন- জনগণের ট্যাক্সের টাকায় আপনাদের বেতন হয়। তাই জনগণের পাশে দাঁড়ান, জনগণের দাবীর সাথে একমত পুষণ করুন। জনগণের ভোটাধিকার ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাধাঁ হয়ে না দাঁড়িয়ে সহযোগীতা করুন। আপনাদের মনে রাখা উচিৎ, সময় একদিন পরিবর্তন হবে। আজ আপনারা যাদের পূজা করছেন, সামনে পিছনে পাহাড়া দিচ্ছেন, তারা জনগণের ভোট চোর, মানুষ তাদের ঘৃনা করে। তারা লাগামহীন দূর্নীতির মাধ্যমে জনগণের সম্পদ লুটপাট করে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। তারা জনবিচ্ছিন্ন। দেশের পটপরিবর্তন হলে আপনাদের তাদের খোঁজে পাবেন না।

জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি এডভোকেট মঞ্জুর উদ্দিন আহমেদ শাহীন, জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম, সদস্য আকাদ্দুস মিয়া বাবুল, মহিবুল ইসলাম শাহীন, আবু সালেহ মোঃ শফিকুর রহমান, জাহেদুল ইসলাম জিতু, হাজী লুৎফুর রহমান, ফরহাদ হোসেন বকুল, এডভোকেট আব্দুল কাদির, এম এ মুছা, গীরেন্ড চন্দ্র রায়, কামাল সিকদার।

সদর উপজেলা বিএনপি ঃ সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক শামসুল ইসলাম মতিন, আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, মশিউর রহমান কামাল, এডভোকেট মইনুল হোসেন দুলাল, এম এ মানিক, ফারুক মিয়া, মতিউর রহমান, ফরিদ মিয়া, হাজী জুলমত আলী, হাজী আব্দুল মতিন, হাফেজ উসমান, শিপন আহমেদ আছকির, আব্দুস সোবহান, এডভোকেট ইলিয়াছ মিয়া, মস্তোফ মিয়া, আব্দুর রাজ্জাক, মমিন মিয়া, আব্দুল জব্বার, জিলু মিয়া, সেলিম মিয়া, কাজী শামছু মিয়া, আব্দুল মজিদ, রায়হান মেম্বার, আব্দুল কালাম প্রমুখ।

হবিগঞ্জ পৌর বিএনপি ঃ হবিগঞ্জ পৌর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম নানু, যুগ্ম আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, মোঃ আলাউদ্দিন, শাহ আলম চৌধুরী মিন্টু, মর্তুজা আহমেদ রিপন, নাজমুল হোসেন বাচ্চু, মুজিবুর রহমান মুজিব, শাহ মুশলিম, আব্দুল গফুর, আব্দুর রউফ, লিটন আহমেদ, কামাল খান, মামুন আহমেদ, সাহেব আলী, আব্দুল হান্নান, আমীর আলী, আক্কাস আলী, হারিস মিয়া, গোলাপ খান, ইলিয়াছ মিয়া, আনোয়ার আলী, আনিসুজ্জামান জেবু, ইকবাল আহমেদ, কাজল মিয়া, সাজিদ মিয়া, বজলুর রহমান, বাদল আহমেদ, আছকির মিয়া, আবুল হোসেন, আবুল হোসেন, ফকির নেওয়াজ, আব্দুর রাজ্জাক চৌধুরী বকুল, আকবর আলী, নাসির উদ্দিন, দেওয়ান মোহাইমিন চৌধুরী ফুয়াদ, গাজী খান আফজাল, শাহ সাহান, শফিকুর রহমান, আলকাছ মিয়া, গাজী রিপন, শাহ তাউছ, নুর মোহাম্মদ, গোলাপ খান, আবুল হাসান, আবুল হোসেন, রাজু বিশ্বাস প্রমুখ।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌর বিএনপি ঃ শায়েস্তাগঞ্জ পৌর বিএনপির সভাপতি মেয়র ফরিদ আহমেদ অলি, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ, মিজানুর রহমান শাকীম, নুরুল হোসেন বাচ্চু, শামীম চৌধুরী, ওয়াহিদ মিয়া, ছমির আলী, মখলিছুর রহমান, হাবিব মিয়া, আব্দুস শহীদ, মাসুম মিয়া, আছকির মিয়া, নয়ন মিয়া প্রমুখ।
শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ঃ শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল করিম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু তাহের, সহ সভাপতি নিজামুল ইসলাম বিলাল, আব্দুল আজিজ ফরহাদ, আব্দুল হাই, শফিকুর রহমান সুজিত, আব্দুল কাইয়ুম ফারুক, শহীদ মেম্বার, নিজাম উদ্দিন মোহন, ইলিয়াছ মিয়া, সাইফুল ইসলাম, সেলিম আহমেদ, আসকির মেম্বার, হুমায়ুন কবির, হাসানুর রহমান ইনু, তৌফিক মিয়া, আব্দুন নুর, মাহমুদ মিয়া, আশরাফ উদ্দিন, সারাজ খান, মোশাহিদ মিয়া, প্রমুখ।
লাখাই উপজেলা বিএনপি ঃ লাখাই উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ ফরিদ মিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম গোলাপ, সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুদ্দিন আহমেদ, তাজুল ইসলাম মোল্লা, মস্তোফা কামাল খসরু, এডভোকেট মোক্তাদির হোসেন, এডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম, এমদাদুল হক, মাহফুজুর রহমান চৌধুরী, রফিক মেম্বার, ইব্রাহিম মিয়া, বশির আলম, সুরে রহমান, মোহাম্মদ আলী, ডাঃ তোফাজ্জুল হক, ইকবাল আহমেদ, ফারুক মিয়া, জালাল তালুকদার প্রমুখ।
চুনারুঘাট উপজেলা বিএনপি ঃ চুনারুঘাট উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মীর সিরাজ আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম শ্যামল তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল করিম সরকার, খায়রুল আলম, প্রফেসর আব্দুল হামিদ, নুরুল আমিন, নিল মিয়া, আব্দুল মতিন, কামরুল হাসান শামীম, প্রফেসার আব্দুল হামিদ তালুকদার, আবু তাহের নিল, হাবিবুল আলম, আফজাল খান, সৈয়দ মাহফুজ, হাজী আব্দুল মালেক, হাজী আবু জাহির, আলহাজ্ব খাইয়রুল আলম প্রমুখ।
চুনারুঘাট পৌর বিএনপি ঃ চুনারুঘাট পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী দিদার হোসেন প্রমুখ।

বানিয়াচং উপজেলা বিএনপি ঃ বানিয়াচং উপজেলা বিএনপির সভাপতি মজিবুল হোসেন মারুফ, সাধারণ সম্পাদক নকীব ফজলে রকীব মাখন, ওয়ারিশ উদ্দিন খান, মেস্তফা আল হাদি, মহিবুর রহমান বাবলু, মতিউর রহমান মতু, জাহির হোসেন, সালাউদ্দিন ফারুক, মাওলানা লুৎফুর রহমান, সোহেল আহমেদ, নাজমুল হোসেন, শরীফ উদ্দিন ঠাকুর, বাবুল তালুকদার, সৈকত খান, শেখ বাকের, তানিয়া খানম, দেলোয়ার হোসেন, এডভোকেট আবুল কাশেম, মোশাররফ হোসেন, রুহুল আমিন, শামছুদ্দিন রানা রিপন, সুব্রত দাস বৈষ্ণব, মওদুদ আহমেদ, সাইদুর রহমান, রাসেল ঠাকুর, জহির লস্কর, উজ্জল মিয়া প্রমুখ।

বাহুবল উপজেলা বিএনপি ঃ বাহুবল উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফেরদৌস আহমেদ চৌধুরী তুষার, সাধারণ সম্পাদক হাজী শামছুল আলম, সহ সভাপতি হাফেজ আব্দুর রকিব, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক এনাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হাই শিবুল, ইমাম শরীফ জুয়েল, আতিকুর রহমান, তোফাজ্জুল হোসেন, এখলাছ মিয়া, শহিদুল মেম্বার, টুকু মিয়া মেম্বার প্রমুখ।

নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ঃ নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক সরফরাজ চৌধুরী, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মজিবুর রহমান সেফু, মজিদুর রহমান মজিদ, রিপন চৌধুরী, শাহীদ আহমেদ, মতিউর রহমান জামাল, হারুনুর রশিদ, রাসেল আহমেদ প্রমুখ।
আজমিরীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ঃ আজমিরীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক শামছুল আলম, আব্দুল মোহিত, রশিদ মিয়া, মাসুদ পারভেজ, মফিজ মিয়া, ইসমাইল হোসেন, সাজ্জাদ সওদাগর, মহিবুর রহমান, মাসুদ মিয়া, ফজলু মিয়া, জিবলু আহমেদ, পিয়ার আহমেদ, শিশু মিয়া প্রমুখ।
আজমিরীগঞ্জ পৌর বিএনপি ঃ আজমিরীগঞ্জ পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আলী আহমেদ জনফুল, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক খালেদুর রশিদ ঝলক, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুস সাত্তার মেম্বার, শাহিদুল ইসলাম, আলী হোসেন, রাখেশ দাস, শায়েল আহমেদ, সাইমুন হাসান সুমন, ইয়াসিন হাসান, হুমায়ুন আমিন, ইমরান মিয়া প্রমুখ।

যুবদল ঃ জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, সহ সভাপতি মহসিন সিকদার, মোশাহিদ আলম মুরাদ, তৌফিকুল ইসলাম রুবেল, কামরুল হাসান রিপন, আবুল কাশেম জুয়েল, এডভোকেট গুলজার খান, এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল, মঞ্জুর উদ্দিন মঞ্জু, নজরুল ইসলাম কাওছার, আব্দুল করিম, নাসির উদ্দিন, আব্দুল কাইয়ুম, আবুল বাশার ইশা, জমির আলী, টিপু আহমেদ, নজরুল ইসলাম, মালেম শাহ, মিজানুর রহমান সুমন, মুর্শেদ আলম সাজন, অলিউর রহমান, সাইদুর রহমান শামীম, নরোত্তম দাস, শাহানুর রহমান আকাশ, তারেক রহমান, হোসাইন আহমেদ রানা, আনোয়ার হোসেন বাদল, শাহীন আলম, আব্দুল হান্নান নানু, জাহিদ হাসান কবির, মাহমুদুল হাসান, এডভোকেট মোজাম্মিল হোসেন, আলমগীর মিয়া, এমদাদুল হক এমরান, আমিনুল ইসলাম আকনজি, মোশাহিদ আলী, সাদিকুর রহমান লিটন, মাহবুবুর রহমান মালু, ফজলু মিয়া, জহিরুল হক সোহেল, জি এম নুরুল হক, নুর উদ্দিন, লুৎফুর রহমান জালাল, জসিম উদ্দিন, রাজন দাস, মোতাক্কিন আহমেদ জয়নাল, শামছুর রহমান জুয়েল, শেখ শাহিন, শাহ নেওয়াজ মেম্বার, আক্তার হোসেন, শাহেদ আহমেদ রিপন, বাদশা সিদ্দিকী, শফিক মিয়া, আব্দুল হান্নান, জামাল মিয়া, আদম আলী, সাইদুর রহমান প্রমুখ।

শ্রমিকদল ঃ জেলা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এস এম বজলুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রতন আনসারী, সোহেল এ চৌধুরী, তুহিন খান, আব্দুল খালেক, আব্দুল কাইয়ুম, আব্দুল হক, নাসির মিয়া, শাহিদ সরদার, কাজল মেম্বার, আমীর আলী প্রমুখ। স্বেচ্ছাসেবক দল ঃ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, এমদাদুল হক বাবুল, আব্দুল আহাদ আনসারী, শেখ মুখলিছুর রহমান, আব্দুল কাইয়ুম, সৈয়দ রুহেব হোসেন প্রমুখ।

মৎস্যজীবি দল ঃ জেলা মৎস্যজীবি দলের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ, তাজুল ইসলাম, মিন্টু লাল দাস, ইউসুফ মিয়া, ওসর মিয়া, তাহির উদ্দিন প্রমুখ।
জাসাস ঃ জেলা জাসাসের আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী, সদস্য সচিব আলী হোসেন সোহাগ, ফজর আলী ফজল, আরশাদ ফজলে খোদা লিটন, এমদাদুল হক লিটন প্রমুখ।
মহিলা দল ঃ জেলা মহিলাদলের সিনিয়র সহ সভাপতি নুরজাহান বেগম, সহ সভাপতি নাদিরা খানম, পান্না আক্তার, আফরোজা চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিমু আক্তার, সাংগঠনিক সম্পাদক সুরাইয়া খানম রাখি, শিরিনা বেগম, আইরিন আক্তার, শেখ নেহারা বেগম, পিয়ারা বেগম, নাজমা আক্তার, মায়া বেগম, জুসনা আক্তার প্রমুখ।
কৃষক দল ঃ জেলা কৃষকদলের যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম, শফিক মিয়া, হোসাইন আহমেদ, আব্দুর রউফ, জিতু মিয়া।
ওলামা দল ঃ এডভোকেট মোঃ ইলিয়াছ, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস নুরী, মাওলানা আব্দুল্লাহ হিল কাফি, মোঃ মহি উদ্দিন, তৌহিদ চৌধুরী।

ছাত্রদল ঃ জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ রাজীব আহমেদ রিংগন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহবুব, সাইফুল ইসলাম রকি, আল আমিন তালুকদার, কামরুজ্জামান উজ্জল, শাহ আলম হোসাইন, মাজহারুল আলম রাবিব, এহসানুল হক ইমরান, ফয়জ উল্লাহ, নাজমুল হোসেন অনি, ইকবাল হোমেন রুমন, কামরুল হাসান, খলিলুর রহমান মাসুম, এজাজুল হক এজাজ, সাজ্জাদুর রহমান শাওন, আসিফুল, তারেক তালুকদার, শামছুদ্দিন মোঃ আরিফ, এমদুল হক ইমন, আমিনুল ইসলাম জিসান, ফয়জুল ইসলাম ইব্রাহিম, মোজাক্কির হোসেন ইমন প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর