শনিবার | ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

১২ দফা দাবিতে শেখ হাসিনা মেডিকেল শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, স্মারকলিপি

প্রকাশিত : অক্টোবর ২৩, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিক্ষক সংকট নিরসন ও স্থায়ী ক্যাম্পাসসহ ১২ দফা দাবিতে মানববন্ধন এবং ক্লাস বর্জন করেছেন হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা।

রোববার (২৩ অক্টোবর) সকালে কলেজের সামনে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধনে অংশ নেন। এর আগে সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অধ্যক্ষের কাছে স্মারকলিপি জমা দেন তারা।

শিক্ষার্থীদের করা দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, স্থায়ী ক্যাম্পাসের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করা। হোস্টেলে প্রতিটি শিক্ষার্থীর আবাসন ও প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা। অস্থায়ী ক্যাম্পাসে পর্যাপ্ত সরঞ্জামাদি নিশ্চিত ও ক্লাস রুমের সংখ্যা বাড়ানো। শিক্ষক সংকট দ্রুত নিরসন করা। দ্রুত সময়ের মধ্যে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগ প্রদান। সিএ ও রেজিস্ট্রার নিয়োগ দেওয়া। প্রতিটি বিভাগকে পুর্নাঙ্গভাবে চালু করা। বিষয় ভিত্তিক পুর্নাঙ্গ ল্যাব ও ল্যাব টেকনিশিয়ান নিয়োগ দেওয়া। কলেজন প্রাঙ্গনে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের জন্য ক্যাফেটারিয়া চালু করা। কলেজে ক্রীড়া কমিটি গঠন ও খেলাধুলার জিনিসপত্র কমিটির কাছে হস্তান্তর করা। মৌসুম ভিত্তিক খেলাধুলার আয়োজন করা। লাইব্রেরি সম্প্রসারণ এবং সেখানে পর্যাপ্ত সময় অধ্যায়নের সুযোগ সৃষ্টি করা।

হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের কর্মসূচির আহবায়ক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোশাহিদ আহমেদ বলেন, আমরা শিক্ষা গ্রহণ করতে এসেছি। এ অবস্থায় মানসম্মত শিক্ষা গ্রহণ করা কঠিন হয়ে পড়েছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত রাখবো।

হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সুনির্মল রায়ের সঙ্গে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ নতুন মাঠে এক জনসভায় হবিগঞ্জে একটি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন। ২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি ৫০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য প্রশাসনিক অনুমোদন দেওয়া হয়। ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে কলেজটির প্রথম অধ্যক্ষ হিসেবে ডা. মো. আবু সুফিয়ানকে নিয়োগ দেওয়া হয়। কিন্তু ক্লাস নেওয়ার জন্য স্থান না পাওয়ায় তখন কোনো শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য অনুমোদন পায়নি। ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ৫১ জন শিক্ষার্থী, যার মধ্যে ১৮ জন ছাত্র এবং ৩৩ জন ছাত্রী, নিয়ে কলেজটির শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসাপাতালের বহুতল ভবনে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে।