মঙ্গলবার | ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

১৪ বছরেও যা পারে নাই আমি ২ বছরেই তা করে দেখাবো

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- সততা আর ইচ্ছা থাকলেই কাজ করা যায়। আমার পূর্বে হবিগঞ্জ পৌরসভায় অনেকই দায়িত্ব পালন করেছেন, কিন্তু পায়জামা শহরের কলঙ্কের তিলক মুছতে পারেননি, হবিগঞ্জ পৌরবাসীকে উন্নত সেবা দিতে পারেননি, শহরবাসী ছিলো উন্নয়ন বঞ্চিত। আমি হবিগঞ্জ পৌরসভার দায়িত্ব নেয়ার পর মাত্র ২ বছর রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিলো আমার রাজনৈতিক দল বিএনপি। এই দুই বছরেই তৎকালিন অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের সহায়তায় ব্যাপক উন্নয়নের মধ্য দিয়ে হবিগঞ্জ পৌরসভার মানচিত্র পরিবর্তন করে দিয়েছিলাম। ইনশাআল্লাহ, বিএনপি রাষ্ট্র ক্ষমতায় গেলে অন্যরা ১৪ বছরেও যা পারে নাই আমি ২ বছরেই তা করে দেখাবো।

তিনি  বৃহস্পতিবার বিকালে সদর উপজেলার ৯নং নিজামপুর ইউনিয়নের দরিয়াপুর গ্রামে ৯নং ওয়ার্ড বিএনপির উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় জি কে গউছ আরও বলেন- রাজনৈতিক দলের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করা পুলিশের কাজ নয়। পুলিশ বাংলাদেশের আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। পুলিশের কাজ হচ্ছে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, আইন শৃংখলা রক্ষা করা। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় কেনা বুলেট জনগণের বুকে নিক্ষেপ করা পুলিশের কাজ নয়। দেশের হারিয়ে যাওয়া গণতন্ত্রের জন্য, মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য জনগণের শান্তিপূর্ন কর্মসূচীতে বাঁধা সৃষ্টি করা পুলিশের কাজ নয়। যারাই এগুলো করছেন তারা আওয়ামীলীগের রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছেন। মনে রাখবেন, এই সরকারই শেষ সরকার না। সময় পরিবর্তন হবে, আজকে যাদের নির্দেশে এসব করছেন সেইদিন তাদের খোঁজে পাবেন না, তারা দেশ ছেড়ে পালাবে। তাই পুলিশ বাহিনীকে আর বিতর্কিত না করে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করুন, জনগণের ভাষা বুঝার চেষ্টা করুন।

তিনি বলেন- ২০১৪ সালের ভোট আর ২০১৮ সালের ভোট বাংলাদেশে আর ফিরে আসবে না। নিশিরাতে ভোট ডাকাতি করে আওয়ামীলীগ বাংলাদেশের রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করেছে। আবারও ইভিএম দিয়ে ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে আওয়ামীলীগ ক্ষমতা আকড়ে ধরে রাখতে চায়। কিন্তু আওয়ামীলীগ আর সেই সুযোগ পাবে না। বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে বাংলাদেশে আর কোনো নির্বাচন হবে না, হতে দেয়া হবে না। বাংলাদেশের মানুষ রাজপথে নেমে আসছে, আওয়ামীলীগের পতনের মধ্য দিয়েই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে, জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে, ইনশাআল্লাহ।

বিএনপি নেতা মোঃ ফরিদ মিয়ার সভাপতিত্বে এবং শাহজাহান মাহমুদ ও কিতাব আলীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, জেলা বিএনপির সদস্য মহিবুল ইসলাম শাহীন, তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এডভোকেট আফজাল হোসেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, নজরুল ইসলাম কাওছার, বিএনপি নেতা সৈয়দ আজহারুল হক বাকু, নিজামপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাজী মতিন, সাধারণ সম্পাদক মজনু তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুক আহমেদ, আক্কাস আলী, আব্দুল জব্বার মেম্বার, ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি উস্তার রাজা, সাধারণ সম্পাদক জামাল আহমেদ, জাবের আহমেদ, হাজী শাহীন, আশকর আলী, লেবু চৌধুরী, ফুল মিয়া, আব্দুল কাইয়ুম, শামীম মেম্বার, জাহাঙ্গীর মিয়া, সফু মিয়া, আব্দুল মন্নাফ, টেনু মিয়া, জালাল মিয়া, কাছম আলী, মইন মিয়া, আব্দুল খালেক, মিন্টু মিয়া, আব্দুল হাই, লিলু মিয়া, নুর ইসলাম, সৈয়দ সোহেল, রোশন মিয়া, কাজল মিয়া, কদর আলী, সিদ্দিকুর রহমান, আব্দুল লতিফ, হাফেজ বাচ্চু মিয়া, রানা মিয়া, দুলাল মিযা, জিতু মিয়া, সৈয়দ আলী, মোঃ ছালেক, ইদ্রিস মিয়া, শামীম খান, আব্দুল ওয়াহাব প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর