বৃহস্পতিবার | ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

১৬ দিন কারাভোগের পর জামিনে মুক্ত বিএনপি নেতা এড. শামছুল ইসলাম

প্রকাশিত : এপ্রিল ২৫, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ ১৬ দিন কারাভোগের পর জামিনে মুক্তি পেয়েছেন লাখাই উপজেলা বিএনপির নব-নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সদস্য এডভোকেট শামছুল ইসলাম। গতকাল সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি ধুলিয়াখাল কারাগার থেকে মুক্ত হন।

কারা ফটকে এডভোকেট শামছুল ইসলামকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ।

এ সময় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী ও জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ সহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।এরআগে গতকাল সোমবার দুপুরে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এডভোকেট শামছুল ইসলামের জামিন প্রার্থণা করলে আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন।

গত ৯ এপ্রিল রাত সাড়ে ১০টার দিকে লাখাই উপজেলার বামৈ-মোড়াকরি সড়কের মানপুর এলাকায় এক অভিযান চালিয়ে পুলিশ এডভোকেট শামছুল ইসলামকে গ্রেফতার করে।
গত ২২ ডিসেম্বর হবিগঞ্জে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে আয়োজিত সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ এসল্ট মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

উল্লেখ্য, বিএনপির চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে গত ২২ ডিসেম্বর হবিগঞ্জে সমাবেশ আহ্বান করে জেলা বিএনপি। পূর্ব নির্ধারিত এই সমাবেশ শহরের শায়েস্তানগরস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে শুরু করার প্রস্তুতিও নেয়া হয়। সমাবেশে উপস্থিত হন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক উপদেষ্টা জয়নাল আবেদিন ফারুক, ভাইস চেয়ারম্যান ড. এনাম আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হাসান জীবন, সমবায় বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব জি কে গউছ, যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল আহমেদ শ্যামল। দুপুর ২টায় সমাবেশ শুরুর কথা। কিন্তু পৌনে ২টায় বিএনপি নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে সমাবেশে যোগ দেয়ার সময় পুলিশ বাঁধা দেয়। এই নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। আহত হয় বিএনপির ৩ শতাধিক নেতাকর্মী। এ ঘটনায় সদর থানা পুলিশ বাদী হয়ে বিএনপির বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ সহ ২ হাজার নেতাকর্মীকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে।

এ ঘটনায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ৩ শতাধিক নেতাকর্মী পুলিশের গুলিতে আহত হওয়ায় এডভোকেট শামছুল ইসলাম বাদী হয়ে আদালতে একটি মামলার আবেদন করেন। এই মামলায় হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার সহ ৫৪ জন পুলিশ সদস্যকে আসামী করা হয়। আদালত মামলাটি খারিজ করে দেন।

আজকের সর্বশেষ সব খবর