সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচন আর বাংলাদেশে ফিরে আসবে না: জি কে গউছ

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচন আর বাংলাদেশে ফিরে আসবে না। এ জন্যই সরকার ইভিএমের আশ্রয় নিয়েছে। ডিজিটাল ভোট ডাকাতির মাধ্যমে আওয়ামীলীগ আবারও বাংলাদেশের ক্ষমতা দখল করতে চায়। কিন্তু সেই সুযোগ আর তাদের দেয়া হবে না। আওয়ামীলীগের সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে দেশের জনগণ রুখে দাড়াবে। বাংলাদেশের মানুষ এখন ইভিএম ব্যালট বুঝে না। বাংলাদেশের মানুষের একটাই দাবী শেখ হাসিনা সরকারমুক্ত নির্বাচন। আমার ভোট আমি দিবো, যাকে খুশি তাকে দিবো, এই পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি কোনো নির্বাচনে যাবে না, কোনো নির্বাচন করতেও দিবে না।

তিনি গতকাল রবিবার দুপুরে শায়েস্তানগরস্থ বিএনপির কার্যালয়ে জেলা বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশে এসব কথা বলেন।

রাজধানীর পল্লবী সহ দেশব্যাপী বিএনপির চলমান কর্মসূচীতে পুলিশের গুলি বর্ষণ ও আওয়ামী সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে জি কে গউছ আরও বলেন- বিএনপি জনগণের পাশে ছিল, বিএনপি জনগণের পাশে থাকবে। বিএনপি জনগণের দাবী আদায় করতে গিয়ে রাজপথে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হচ্ছে, পুলিশের গুলিতে বিএনপির নেতাকর্মীরা নিহত হচ্ছে, আহত হচ্ছে, মিথ্যা মামলায় আসামী হয়ে কারাগারে যাচ্ছে। কিন্তু তারপরও বিএনপি রাজপথ ছাড়েনি। ইনশাআল্লাহ, জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা না করে, জনগণের ভোটের অধিকার পুনরুদ্ধার না করে বিএনপি ঘরে ফিরবে না। তাই দেশের প্রয়োজনে, দেশের মানুষকে বাঁচাতে বিএনপিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আমাদের ইমানি দায়িত্ব। এ জন্য আমাদের শপথ নিতে হবে, আমাদের জীবনের বিনিময়ে হলেও বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কবল থেকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন, দেশনায়ক তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার আন্দোলন ও মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার আন্দোলনে রাজপথ ছাড়বো না।

তিনি বলেন- জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, নজিরবিহীন লোডশেডিং ও দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিএনপি এখন প্রতিটি জেলায়, উপজেলায় ও ইউনিয়নে প্রতিবাদ সমাবেশ করছে। এই আন্দোলন সরকার পতনের কোনো কর্মসূচী না। জনগণের দাবী আদায়ে বিএনপি রাজপথে নেমেছে। কিন্তু অনির্বাচিত আওয়ামীলীগ সরকারের তা শয্য হচ্ছে না। দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপির সভা- সমাবেশে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা পুলিশের সহায়তায় হামলা করছে। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সহ হাজার হাজার নেতাকর্মী আহত হচ্ছেন। তারপরও জ্বালাও পুড়াও এর কোনো সুযোগ কাউকে দিচ্ছে না বিএনপি। আওয়ামীলীগের উস্কানীতে বিএনপি পা দিবে না। মিথ্যা মামলা দিতে খোড়াক তৈরী করার সুযোগ পুলিশকে দেয়া হবে না। মামলা দিয়ে যেভাবে ২০১৮ সালে আমাদেরকে ঘর ছাড়া, বাড়ি ছাড়া, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া করা হয়েছিল এভার সেই সুযোগ দেয়া হবে না। শেখ হাসিনার পতন নিশ্চিত করাই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য।

জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি এডভোকেট শামসু মিয়া চৌধুরী, যুগ্ম আহ্বায়ক এডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম ও হাজী এনামুল হক, সদস্য এম জি মোহিত, মহিবুল ইসলাম শাহীন প্রমুখ।

সদর উপজেলা বিএনপি ঃ সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক শামসুল ইসলাম মতিন, আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, সৈয়দ আজহারুল হক বাকু, হাজী আব্দুল জব্বার খান, আব্দুল মতিন, ইদ্রিস মিয়া, আব্দুল আওয়াল, হাজী জুলমত আলী, এডভোকেট ইলিয়াছ, আহাদ মিয়া, দরছ মিয়া, শিপন আহমেদ আছকির, জিললুর রহমান, আল আমিন মিয়া, মোস্তুফা মিয়া, আবুল হোসেন, আশরাফুল আলম, আতর আলী, ফরিদ মিয়া, নুরুল আলম, সেলিম উদ্দিন, বজলুর রহমান, নজরুল ইসলাম, ফয়সল আহমেদ, আরব আলী, আব্দুল হামিদ, শাহেদ আলী রিপন প্রমুখ।

হবিগঞ্জ পৌর বিএনপি ঃ হবিগঞ্জ পৌর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম নানু, যুগ্ম আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, নাজমুল হোসেন বাচ্চু, মোঃ আলাউদ্দিন, শাহ আলম চৌধুরী মিন্টু, মর্তুজা আহমেদ রিপন, লিটন আহমেদ, আব্দুল গফুর, শাহ মুশলিম, কামাল খান, সাহেব আলী, আব্দুল হান্নান, আব্দুর রউফ, হারিছ মিয়া, ইলিয়াছ আলী, আনোয়ার আলী, আনিসুজ্জামান জেবু, ইকবাল আহমেদ, কাজল মিয়া, ফকির নেওয়াজ, আব্দুর রাজ্জাক চৌধুরী বকুল, রুহুল আমিন, ছুরত আলী, রুহেব হোসেন, দেওয়ান মুহাইমিন চৌধুরী ফুয়াদ, জয়নাল আবেদীন, মনিরুজ্জামান, সাদিক মিয়া, শফিকুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, আব্দুস সালাম, আমজাদ হোসেন, আলকাছ মিয়া, গাজি রিপন, আবদুল খালেক, নুর মিয়া প্রমুখ।

যুবদল ঃ হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, আবুল কাশেম জুয়েল, তৌফিকুল ইসলাম রুবেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গুলজার খাঁন, জালাল উদ্দিন সজলু, মঞ্জুর উদ্দিন মজনু, দুলাল মিয়া, নজরুল ইসলাম কাওছার, আবদুল করিম, নজরুল ইসলাম, মালেক শাহ, মুর্শেদ আলম সাজন, আব্দুল হান্নান, মাহমুদুর রহমান মাহমুদ, শাহানুর রহমান আকাশ, আমিনুল ইসলাম আখঞ্জি, লুৎফুর রহমান, তারেক রহমান, জি এম নুরুল হক, শাহেদ আহমেদ রিপন প্রমুখ।

জাসাস ঃ জেলা জাসাসের আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী ও সদস্য সচিব আলী হোসেন সোহাগ প্রমুখ। স্বেচ্ছাসেবক দল ঃ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, সহ সভাপতি আব্দুল আহাদ আনসারী, শেখ মুখলিছুর রহমান প্রমুখ।

ছাত্রদল ঃ জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহবুব, সাইফুল ইসলাম রকি, আল আমিন তালুকদার, নাজমুল হোসেন অনি, আবিদুর রহমান রাকিব, মুর্শেদ কামাল সোহাগ, ইকবাল আহমেদ রোকন, সোহাগ আহমেদ, শামসুদ্দিন আরিফ প্রমুখ।

শ্রমিকদল ঃ জেলা শ্রমিকদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহেল এ চৌধুরী, আব্দুল হক প্রমুখ। কৃষক দল ঃ জেলা কৃষকদলের যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম, আশরাফুল আলম সবুজ প্রমুখ।
মহিলা দল ঃ জেলা মহিলাদলের সিনিয়র সহ সভাপতি নুরজাহান বেগম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিমু আক্তার, শিরিনা বেগম, অরুনা বেগম, সেতারা বেগম প্রমুখ।

আজকের সর্বশেষ সব খবর