সোমবার | ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

৩৮৬ দিন পর বাসার বাইরে বেগম খালেদা জিয়া

প্রকাশিত : এপ্রিল ১৫, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : দুর্নীতির মামলায় সাজাভোগ করার মধ্যেই সরকারের নির্বাহী আদেশে মুক্তি পেয়ে হাসপাতাল ছেড়ে গুলশানের বাসায় যান বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। গত বছরের ২৫ মার্চ বাসায় ফেরার পর করোনার প্রকোপের মধ্যে আর বের হননি সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। ৩৮৬ দিনের মাথায় বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) ‘ফিরোজা’ থেকে বের হলেন খালেদা জিয়া। সিটি স্ক্যান করাতে তাকে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

এদিন রাত সোয়া ৯টার দিকে ‘ফিরোজা’ থেকে বের হয় খালেদাকে বহনকারী গোল্ডেন কালারের একটি প্রাইভেটকার। গাড়ির পেছনের আসনে বেগুনী রঙের পোশাক পরা খালেদার সঙ্গে আরো এক নারীকে দেখা যায়। গাড়ির সামনের আসনে দেখা যায় তার গৃহকর্মী ফাতেমাকে। সবারই মুখে মাস্ক ছিল। রাত ৯টা ৪০ মিনিটের দিকে তিনি হাসপাতালে পৌঁছান।

করোনার কারণে খালেদা জিয়ার গাড়িটি হাসপাতালের প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশের পরই সেটি আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়। যেন, অতিরিক্ত কোনো গাড়ি সেখানে না ঢুকতে পারে।

এভারকেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে আছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও দলের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. জাহিদ হোসেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক দলের প্রধান মেডিসিন ও বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এফএম সিদ্দিকী বলেন, খুব দ্রুত খালেদা জিয়ার সিটিস্ক্যান করানো হবে।

তিনি বলেন, কোভিডে আগে থেকে বলা যায় না অবস্থা কেমন হবে। এটা খুব দ্রুত পরিবর্তনশীল একটা রোগ। তবু আমরা দ্রুত সিটি স্ক্যান করিয়ে ফেলব। সিটি স্ক্যান দেখে যদি মনে করি, বাসায় রেখে চিকিৎসা করাটা উনার জন্য ভালো হবে, তাহলে বাসায় রাখব। যদি মনে করি, দু–তিন দিনের জন্য বা কয়েক দিনের জন্য হাসপাতালে পর্যবেক্ষণে রাখা দরকার, আমরা সেটাও করব। এটা নির্ভর করবে সিটি স্ক্যানের রিপোর্টের ওপর।

বিএনপি চেয়ারপারসনকে দেখে আসার পর ফিরোজার সামনে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন এফএম সিদ্দিকী।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার সকালে জ্বর আসলেও এখন তার শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক রয়েছে। তার ব্লাড রিপোর্ট ভালো। আমরা তার সিটিস্ক্যান করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যে কোনো সময় সিটিস্ক্যান করানো হবে। ইতোমধ্যেই আমরা সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রায় দুই বছর কারাভোগের পর গত বছরের ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে ছয় মাসের জন্য মুক্তি পান। দেশে করোনাভাইরাস ছড়ানোর পরিপ্রেক্ষিতে মানবিক বিবেচনায় শর্তসাপেক্ষে খালেদার সাজা স্থগিত করে তাকে মুক্তি দেয়া হয়। শর্ত হলো- খালেদা ঢাকার নিজ বাসায় থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করবেন এবং এই সময়ে তিনি দেশের বাইরে যেতে পারবেন না। পরে আরো দু’দফায় খালেদার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়। মুক্তির পর থেকে রাজধানীর গুলশানের ভাড়াবাসা ‘ফিরোজায়’ বসবাস করছেন খালেদা জিয়া।

গত রোববার খালেদা জিয়ার করোনা শনাক্ত হয়। পরে চিকিৎসকরা একাধিকবার পরীক্ষা-নীরিক্ষা করে জানিয়েছেন তার শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ নেই। বাড়তি সতর্কতা হিসেবে করোনায় আক্রান্তদের যে ধরনের পরীক্ষা করতে হয় তা করা হয়েছে খালেদা জিয়ার। যার রিপোর্ট আজ হাতে পৌঁছেছে চিকিৎসকদের।

আজকের সর্বশেষ সব খবর