রবিবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

৫ বছর নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না ইমরান খান

প্রকাশিত : অক্টোবর ২১, ২০২২




আন্তর্জাতিক ডেস্ক ॥ দুর্নীতির দায়ে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ৫ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন। এই ৫ বছরে কোনো নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না তিনি।

পাকিস্তানি গণমাধ্যম ডন জানায়, শুক্রবার (২১ অক্টোবর) পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) ইমরান খানকে অযোগ্য ঘোষণা করেছে। পিটিআই চেয়ারম্যান এখন থেকে আর জাতীয় পরিষদের সদস্য নন বলেও জানিয়েছে কমিশন।

রায়ে বলা হয়, আর্টিকেল ৬৩ (১) (পি) এর আওতায় ইমরান খানকে মজলিশ-ই-শুরার (পার্লামেন্ট) সদস্য হিসেবে অযোগ্য বিবেচনা করা হয়েছে। দুর্নীতিতে জড়িত থাকায় জাতীয় পরিষদে তাঁর আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হলো। ইমরানের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করা হবে বলেও উল্লেখ করা হয়।

রাজধানী ইসলামাবাদে ইসিপি সচিবালয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) সিকান্দার সুলতান রাজার নেতৃত্বে চার সদস্যের বেঞ্চ এই রায় ঘোষণা করেন। এর মধ্য দিয়ে তোষাখানা মামলায় আইনি জয় পেল পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন সরকার।

রায়ে বলা হয়েছে, তোষাখানার সম্পত্তির ত্রুটিপূর্ণ ঘোষণায় ইমরানের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধের বিচার শুরু হবে।

তোষাখানাতে থাকা উপহার সামগ্রী এবং বিক্রয় থেকে আয়ের বিশদ বিবরণ প্রকাশ না করার অভিযোগে ক্ষমতাসীন জোট সরকার গত আগস্টে ইমরানের বিরুদ্ধে স্পিকারের কাছে অভিযোগ দেয়। তিনি পরে সেটি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) সিকান্দার সুলতান রাজার কাছে পাঠান।

পাকিস্তানে তোষাখানা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৭৪ সালে। এটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণাধীন একটি বিভাগ। সরকার ও অন্যান্য রাজ্য প্রধান এবং বিদেশি বিশিষ্ট ব্যক্তিরা শাসক, সংসদ সদস্য, আমলা এবং কর্মকর্তাদের যেসব উপহার সামগ্রী দেন সেগুলো সংরক্ষণের দায়িত্বে থাকা একটি দপ্তর এটি।

তোষাখানার নিয়ম অনুসারে, প্রযোজ্য ব্যক্তিদের দেওয়া উপহার এবং অন্যান্য উপকরণ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে নিয়মিত রিপোর্ট করতে হয়।

২০১৮ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে পিটিআই সরকার ইমরানকে দেওয়া উপহারের বিবরণ প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক ছিল। যুক্তি ছিল, এটি আন্তর্জাতিক সম্পর্ককে হুমকির মুখে ফেলবে।

তবে গত ৮ সেপ্টেম্বর নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া লিখিত জবাবে, ইমরান প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন তাঁর প্রাপ্ত কমপক্ষে চারটি উপহার বিক্রি করার কথা স্বীকার করেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী তাঁর জবাবের স্বপক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বলেন, তিনি রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে ২১ দশমিক ৫৬ মিলিয়ন রুপি দিয়ে উপহারগুলো সংগ্রহ করেছিলেন তা বিক্রি করে প্রায় ৫৮ মিলিয়ন রুপি পাওয়া গেছে। উপহারগুলো মধ্যে রয়েছে— একটি গ্রাফ হাতঘড়ি, এক জোড়া কাফ লিংক, একটি দামি কলম এবং একটি আংটি এসব মিলিয়ে একটি সেট; অন্য তিনটি উপহারের মধ্যে রয়েছে চারটি রোলেক্স ঘড়ি।

আজকের সর্বশেষ সব খবর