রবিবার | ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

৭ নভেম্বরের চেতনায় উদ্ভুদ্ধ হয়ে দেশের গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে

প্রকাশিত : নভেম্বর ৮, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ জি কে গউছ বলেছেন- ৭ নভেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি তাৎপর্য্যপূর্ন দিন। এই দিন সিপাহী জনতার বিপ্লব ও সংহতি না হলে বাংলাদেশের ইতিহাস পাল্টে যেত। ৭ নভেম্বর সিপাহি জনতার বিপ্লবের মাধ্যমেই বাকশালী শক্তির সকল ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত নস্যাৎ করে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা হয়েছিল। এই দিন তৎকালীন সেনাপ্রধান শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান দেশকে এক অচলাবস্থা থেকে রক্ষা করেছিলেন বলেই আজ বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে মাথা উচুঁ করে দাড়িয়েছে। শুরু হয়েছিল বহুদলীয় রাজনীতির ধারা। তিনি দেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে উন্নয়ন ও উৎপাদনে শীর্ষে পৌছে দিয়েছিলেন। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বাংলাদেশকে একটি স্বনির্ভর রাষ্ট্রে পরিণত করেছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সেই গণতন্ত্র আজ দেশে নেই। সেই বাকশালী আওয়ামীলীগ সরকার আবারও দেশের গণতন্ত্র হরণ করেছে। মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। তাই আবারও ৭ নভেম্বরের চেতনায় উদ্ভুদ্ধ হয়ে দেশের গণতন্ত্র ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আওয়ামীলীগ সরকারের কবল থেকে মুক্ত করতে হবে। এ জন্য সকলকে রাজপথে নামতে হবে, ঐক্যবদ্ধভাবে ইশপাত কঠিন আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। দলকে সংগঠিত করতে হবে, নতুন প্রজন্মের নিকট ৭ নভেম্বরের ইতিহাস তুলে ধরতে হবে।
তিনি গতকাল সোমবার রাতে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির উদ্যোগে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জি কে গউছ আরও বলেন- দিনের ভোট রাতে নিয়ে আওয়ামীলীগ সরকার বংলাদেশকে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। দেশের মানুষের জান-মালের নিরাপত্তা নেই, আইনের শাসন নেই। লাগামহীন দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে দেশের মানুষ আজ অতিষ্ঠ। কিন্তু জনগণের চিন্তা আওয়ামীলীগের নেই। কারণ জনগণের ভোটের প্রয়োজন তাদের নেই। এই সরকার সকল ক্ষেত্রে দলীয়করণ করেছে। ফলশ্র“তিতে দেশে সন্ত্রাস, দুর্নীতি, ধর্ষণ, খুন, ঘুম আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু সেই দিকে সরকার নজর না দিয়ে রাজপথের বিরোধীদল বিএনপিকে দমনে মরিয়া হয়ে কাজ করছে। সীমাহীন দূর্নীতি আর দুঃশাসনের কারণে আওয়ামীলীগ জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পুলিশ নির্ভর হয়ে পড়েছে। এভাবে একটি রাষ্ট্রকে চলতে পারে না। তাই গণআন্দোলনের মাধ্যমে আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত করতে হবে।

জেলা বিএনপি যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি এডভোকেট শামছু মিয়া চৌধুরী, এডভোকেট মঞ্জুর উদ্দিন আহমেদ শাহীন, জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাজী এনামুল হক সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, যুগ্ম আহ্বায়ক শামছুল ইসলাম মতিন, পৌর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম নানু, যুগ্ম আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, জেলা মৎস্যজীবি দলের সভাপতি এডভোকেট মুদ্দত আহমেদ, গিরেন্ড চন্দ্র রায়, আজম উদ্দিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, মোঃ আলাউদ্দিন, নাজমুল হোসেন বাচ্চু, মর্তুজা আহমেদ রিপন, এস এম আওয়াল, লিটন আহমেদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট গুলজার খান, এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল, জেলা জাসাসের আহ্বায়ক মিজানুর রহমান চৌধুরী, অলিউর রহমান অলি, শেখ মখলিছুর রহমান, আব্দুল কাইয়ুম, জেলা কৃষকদলের যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম, আলী আকবর সোহাগ, জেলা মহিলাদলের সহ সভাপতি নুরজাহান বেগম, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিমু আক্তার, রতন আনসারী, তুহিন খান, এডভোকেট মোঃ ইলিয়াছ, মুর্শেদ আলম সাজন, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহবুব, আল আমিন তালুকদার, রুমেল খান চৌধুরী, নাজমুল হোসেন অনি, আব্দুল আওয়াল মেম্বার, আশরাফুল আলম সবুজ, তাজুল ইসলাম, মাওলানা জহিরুল ইসলাম।

আজকের সর্বশেষ সব খবর