শিরোনাম
  প্রেমের টানে সাদুল্যাপুর থেকে এক মাসেই ২৩ নারী উধাও       দুই সন্তানের গলায় ছুরি চালিয়ে বাবার আত্মহত্যার চেষ্টা       সুন্দরী মেয়ে দেখলেই তুলে নিয়ে যাচ্ছে ছাত্রলীগ: রিজভী       হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মুরাদের পিতার ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন       তেঘরিয়া ইউনিয়নে সরকারি সহায়তা বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির       মানবাধিকার প্রতিবেদন তৈরিতে রাজধানীতে সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ       মাধবপুর বিউটি পার্লারে ৪ নারীর উপর হামলা, থানায় অভিযোগ       মেঘলা আকাশের চিত্রে যেন চিরচেনা আশ্বিনের রূপ হারিয়ে গেছে!       ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতারকৃত ইউপি সদস্য রজব আলীর জামিন না মঞ্জুর       হবিগঞ্জে ওলামাদলের ৪১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত    


নবীগঞ্জে মসজিদ নিয়ে বাণিজ্য ও দুর্নীতির অভিযোগ

মোঃ আলাল মিয়া, নবীগঞ্জ প্রতিনিধি : নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের একটি মসজিদে নামফলক বাণিজ্য ও নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন এই মসজিদের ভূমিদাতা পরিবার। দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে নেই আয় ব্যয়ের কোনো হিসেব। মসজিদ সুরক্ষায় ভূমিদাতা পরিবারের পক্ষ থেকে হয়েছে মামলা মকদ্দমা।

এদিকে ইনাতগঞ্জ জামে মসজিদ নাম পরিবর্তন করে স্থানীয় এক মৃত ব্যক্তির লন্ডন প্রবাসীর স্ত্রীর নামে করা হয়েছে মসজিদের নামফলক। এতে করে বিব্রত এলাকার মানুষ। নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ইনাতগঞ্জ পশ্চিম বাজারে নির্মিত মসজিদ নিয়ে ঘটেছে এমন কান্ড!

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের মুনসুরপুর গ্রামের আশাহিদ আলী আশার দাদা ওয়াব উল্লাহ এবং পরবর্তীতে তার পিতা ইব্রাহীম উল্লাহ এই মসজিদের ভূমিদাতা হিসেবে মসজিদে রেজিষ্টারী কবলার মাধ্যমে ওয়কাফ্ নামা প্রদান করেন। ১৯৮৯ সালের ১৫ জানুয়ারী ওয়াব উল্লাহ ইনাতগঞ্জ জামে মসজিদ নামকরণে জায়গা হস্তান্তর করেন তৎকালীন কমিটির কাছে। পরবর্তীতে প্রায় ২ মাস পরই ১৯৮৯ সালের মার্চ মাসের ১৫ তারিখ অদৃশ্যজনিত কারনে মসজিদের নাম বদল করে দেওয়া হয়। ইনাতগঞ্জ জামে মসজিদ বদল করে সালেহা জামে মসজিদ নামে নামকরণ করা হয়। এতে করে মসজিদের ভূমিদাতা পরিবার ও গ্রামবাসীর মধ্যে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। জনমনে বিরাজ করে নানা প্রশ্ন। শুরু হয় দ্ব›দ্ব। এই দ্ব›দ্ব গড়ায় ওয়াব উল্লাহ’র পুত্র ইব্রাহীম উল্লাহ এবং তার পুত্র আশাহিদ আলী আশা পর্যন্ত। দীর্ঘ এতটা বছর কেটে গেলে ও এই দ্ব›েদ্বর কোনো সুরাহা পাননি মসজিদের ভূমিদাতা পরিবার। বিগত ৩০ বছর ধরে মসজিদ নিয়ে অনিয়ম দুর্নীতি ও নামফলক বাণিজ্য বন্ধ ও মসজিদ সুরক্ষার জন্য মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন আশাহিদ আলী আশা।

সর্বশেষ ২০১৯ সালে ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বজলুর রশিদ চৌধুরী ও ইনাগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক সামছু উদ্দিন খানের মধ্যস্থতায় নবীগঞ্জ থানার সাবেক ওসি ইকবাল হোসেন, ইনাগঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ খালেদ আহমেদ পাঠান, মাসুদ আহমেদ জিহাদী, বড়ভাকৈড় ইউনিয়নের সাবেক চেয়ার‌্যান মোঃ ছুবা মিয়া, নবীগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক শাহ আবুল খায়ের, নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসেন মিঠুসহ এলাকার বিশিষ্ট গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতে সালিশ বিচার অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সালিশ বিচার ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি বোর্ড গঠন করে। বোর্ডের সুপারিশ গুলো লিখিত আকারে গৃহিত করা হয়। এসময় সালিশ বিচারে ও আশাহিদ আলীর পরিবার মসজিদের ভূমিদাত হিসেবে ¯ী^কৃতি দেওয়া হয়। এই মসজিদের ভেতরে আশাহিদ আলীর নামেও কিছু জায়গা রয়েছে বলে সিদ্ধান্তে বলা হয় এবং জামাল মিয়া নামে এক ব্যক্তি মসজিদের জায়গা দখল হস্তান্তর করবেন বিনিময়ে তাকে ৪ লাখ টাকা মসজিদ কমিটির পক্ষে ক্ষতিপূরন হিসেবে প্রদান করার ওকথা ছিল পাশাপাশি মসজিদের ভূমিদাতা পরিবারের নাম থাকবে নামফলকে। সালিশ বিচারে ২ মাসের ভেতরে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করার কথা থাকলেও বছর পেরিয়ে গেলেও তা কার্যকর হয়নি। প্রশাসন ও স্থানীয় গণ্যমান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতি সালিশ বিচারের সিদ্ধান্ত মানছেন না বর্তমান মসজিদ কমিটি। উচ্চ পর্যায়ের সকল ব্যক্তিদের উপস্থিতি সালিশ বিচার কার্যকর না হওয়ায় সন্দেহের তীর আরোও ঘনভীত হচ্ছে। এছাড়াও মসজিদের নামফলকে দেখা গেছে ভিন্ন ভিন্ন দুটি লিখা! প্রথমে সাবেক ইনাতগঞ্জ জামে মসজিদ! ২য়টিতে সালেহা জামে মসজিদ। মসজিদ নিয়ে এত হযবরল অবস্থা কেন? জানতে চাইলে মসজিদ কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মসজিদ নিমার্ণের জন্য টাকা ছিল না তাই তৎকালীন লন্ডন প্রবাসী আরজান আলী টাকা দিয়েছিলেন ভবন নির্মাণ করার জন্য। এজন্য তার স্ত্রীর সালেহা বেগমের নামে মসজিদের নামফলক করা হয়েছে।

তবে ভূমিদাতা আশাহিদ আলী আশার পরিবার। সালিশ বিচারের সিদ্ধান্ত কেন মানা হচ্ছে না জানতে চাইলে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাজ্বী হেলিম প্রশ্নটি এড়িয়ে যান। অভিযোগ রয়েছে নামফলক দেখিয়ে লন্ডন প্রবাসী সাহেলা বেগমের কাছ থেকে আর্থিকভাবে পায়দা হাসিল করা হচ্ছে। ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মাসুদ জিহাদী বলেন, মসজিদের নাম পরিবর্তন করার পেছনে একটি মহলের বিরাট দুর্নীতির সাথে জড়িত রয়েছে। আমরা ধারণা করছি নামফলক দেখিয়ে অর্থ ও হাসিল করা হচ্ছে। যা আমাদের বিব্রত করছে। আর না হয় ইনাতগঞ্জ জামে মসজিদ নামটি পরির্বতন করা হবে কেন?

এ ব্যাপারে মসজিদ ভূমিদাতা পরিবারের আশাহিদ আলী আশা বলেন, আমার দাদা ওয়াব উল্লাহ এবং আমার পিতা ইব্রাহীম উল্লা এলাকার মানুষ মহানসৃষ্টিকর্তার এবাদত বন্দেগী করার জন্য মসজিদ নির্মাণের জায়গা দিয়েছেন। মহাল আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য। এই মসজিদে কোনো প্রকার অন্যায় অনিয়ম দুর্নীতি প্রতিষ্ট করা হবে তা সহ্য করা হবে না। মসজিদের নাম বিক্রি করে অর্থ বাণিজ্য ব্যক্তির পকেট ভরা বন্ধ করা হবে ইনশাআল্লাহ। মসজিদের উন্নয়ন ও দুর্নীতিমুক্ত করতে কাজ করছি। আল্লাহ সহায় থাকলে থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসবে। এমন কি খাতায় কলমে কোটি টাকার ও কোনো কিছু মিল নেই বলে তিনি অভিযোগ করেন।