মঙ্গলবার | ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জাল সনদে একযুগ চাকরির পর ফেঁসে গেছেন দুই শিক্ষক

প্রকাশিত : মার্চ ২৪, ২০২১




সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে জাল নিবন্ধন সনদে একযুগ চাকরি করার পর ফেঁসে গেছেন দোয়ারাবাজারের দুই শিক্ষক। তারা পলাতক রয়েছেন।

ওই দুই শিক্ষক হলেন- উপজেলার পান্ডারগাঁও ইউনিয়নের পান্ডারগাঁও গ্রামের আবরু মিয়ার ছেলে স্থানীয় হাজী কনু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষক ফিরোজ আহমেদ এবং নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার বরবাড়িয়া গ্রামের দবির উদ্দিনের ছেলে একই বিদ্যালয়ের জীব বিজ্ঞানের শিক্ষক রেজাউল করিম।

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) কর্তৃক যাচাইয়ে ভুয়া প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে দোয়ারাবাজার থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তারা বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।

মামলার এজাহার ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, ফিরোজ আহমেদ ২০০৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর চাকরিতে যোগদান করেন। যা ২০১১ সালের ১ নভেম্বর এমপিওভুক্ত হয়। অপরদিকে রেজাউল করিম ২০১১ সালের ২ অক্টোবর চাকরিতে যোগদান করেন। যা ২০১২ সালের ১ নভেম্বর এমপিওভুক্ত হয়।

এদিকে জাল সনদে চাকরির বিষয়টি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে গত ২১ ফেব্রুয়ারি ওই দুই শিক্ষকসহ ওই প্রতিষ্ঠানের ছয়জনের নিবন্ধন সনদ যাচাই করতে এনটিআরসিএ বরাবরে একটি স্মারক পাঠায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যাচাই শেষে গত ৩ মার্চ এনটিআরসিএ কর্তৃক প্রেরিত স্মারকে অভিযুক্ত শিক্ষক ফিরোজ আহমেদ ও রেজাউল করিমের নিবন্ধন সনদ জাল ও ভুয়া বলে প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দিয়ে তা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়। এরপর থেকেই পলাতক রয়েছে ওই দুই শিক্ষক। তাদের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরও বন্ধ রয়েছে।

এদিকে পলাতক দুই শিক্ষকের জমাকৃত মূল সার্টিফিকেট বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ফাইল থেকে গায়েব হওয়ার ঘটনায় এ যাবত থানায় জিডি পর্যন্ত করা হয়নি। বিষয়টিকে অনেকেই রহস্যজনক বলে মন্তব্য করছেন।

হাজী কনু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের এডহক কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফতেফুল ইসলাম জানান, আমাদের প্রতিষ্ঠানে কোনো ভুয়া সনদধারীদের ঠাঁই নেই। বাকি সবার সনদপত্রও যাচাই বাছাই করা হবে। ইতোমধ্যে ওই দুই শিক্ষককে বহিষ্কার করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

সার্টিফিকেট গায়েবের বিষয়ে তিনি বলেন, বিদ্যালয়ের যাবতীয় ফাইলপত্র প্রধান শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে থাকে। চাবিও উনার কাছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিজ আলী সার্টিফিকেট গায়েব হওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, ২০১৮ সালে ওই দুই শিক্ষক তাদের নিজ প্রয়োজনে বিদ্যালয় থেকে সার্টিফিকেট তুলে নেন। কাজ শেষে এগুলো পুনরায় জমা দিতে বলা হলেও তারা জমা দেননি।

দোয়ারাবাজার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজাদুর রহমান জানান, জাল সনদে চাকরির অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত করা হবে। জাল সনদধারী কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

দোয়ারাবাজার থানার ওসি মোহাম্মদ নাজির আলম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ওই দুই ভুয়া সনদধারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে একটি মামলা অ্যাফেয়ার করা হয়েছে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর