বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

জি কে গউছের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২২




স্টাফ রিপোর্টার ॥ পুলিশ এসল্ট মামলায় কারামুক্ত হয়ে দলীয় নেতৃবৃন্দ, আইনজীবি, সাংবাদিক ও হবিগঞ্জবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ।

তিনি বুধবার (১৬ই ফেব্রুয়ারি) রাতে সংবাদপত্রে প্রেরিত এক বিবৃতিতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভীসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ এবং জাতীয়তাবাদী আইনজীবি ফোরামের সভাপতি এডভোকেট মোঃ ফজলুর রহমানসহ যে সকল আইনজীবি আইনী সহায়তা করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

কারাগারে থাকা অবস্থায় বিএনপি নেতাকর্মীদের মুক্তি কামনায় হবিগঞ্জের বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, বিভিন্ন মন্দিরে প্রার্থনা, বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের সভা-সমাবেশের সংবাদ হবিগঞ্জের সাংবাদিকগণ তাদের সংবাদপত্রে গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করার জন্য তিনি সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

হবিগঞ্জবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞা প্রকাশ করে জি কে গউছ বলেন- আমার রাজনৈতিক জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে এবং আমার ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনের প্রতিটি দুঃসময়ে হবিগঞ্জবাসীকে আমি পাশে পেয়েছি পরম আপনজন হিসেবে। ১/১১ এর সময় একটি মহলের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে আমাকে একাধারে সাড়ে ১৯ মাস দেশের বিভিন্ন কারাগারে বন্দি থাকতে হয়েছে। ২০১৪ সালে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যাকান্ডের মামলায় আমাকে আসামী করা হয়। অথচ ঘটনার সময় আমি আমার বাবাকে নিয়ে পবিত্র হজ্জব্রত পালনের উদ্দেশ্যে পবিত্র মক্কা শরীফে অবস্থান করছিলাম। এই মামলায় আমাকে একাধারে ৭শ ৩৯ দিন (দুই বছর ৮দিন) হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সিলেট কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়। কারাগারে থাকা অবস্থায়ই ২০০৪ সালে সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে আওয়ামীলীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের জনসভায় বোমা হামলার মামলায় আমাকে আসামী করা হয়। এরইমধ্যে ষড়যন্ত্রকারীরা বুঝতে পেরেছে এসব মিথ্যা মামলা দিয়েও আমাকে ধ্বংস করা সম্ভব নয়। তাই হবিগঞ্জ কারাগারের ভিতরে আমাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করা হয়। এরই অংশ হিসাবে কুখ্যাত এক দাগী আসামীকে দিয়ে কারাগারের ভিতরে পবিত্র ঈদের দিনে আমার উপর হামলা চালানো হয়। আমি গুরুতর আহত হই। দ্রুত সময়ে আমার চিকিৎসা পর্যন্ত করানো হয়নি। আমাকে হত্যা চেষ্টার এই সংবাদ পেয়ে হবিগঞ্জবাসী ঈদের আনন্দ ত্যাগ করে আমার পরিবারের পাশে দাড়িয়েছিলেন, আমার জন্য দোয়া করেছিলেন, আমাকে দেখতে কারাগারে গিয়ে হাজার হাজার মানুষ ভিড় করেছিলেন, এ জন্য আমি আমৃত্যু ঋণী হয়ে থাকব।
কারাগারে থাকাকালে এবং আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে আমি মানুষের কাছে ভোট চাইতে পারিনি। ক্ষমতাসীনদের রোষানলের শিকার হয়ে আমার দলীয় নেতাকর্মীরা নির্বাচনী মাঠে কাজও করতে পারেননি। এমন এক পরিস্থিতিতে হবিগঞ্জ পৌরবাসী আমাকে বিপুল ভোটে ৩য় বারের মতো হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত করে নতুন জীবন দান করেছিলেন।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৩ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আমি রাষ্ট্রযন্ত্রের কাছে পরাজিত হয়েছি। এই নির্বাচনে দিনের ভোট রাতেই সম্পন্ন হয়েছে, এটা দিবালোকের মত সত্য। অথচ এই নির্বাচনে আওয়ামীলীগের লোকজন দ্বারা দায়েরকৃত ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগে ৪টি মিথ্যা মামলায় আমাকে ২০১৯ সালে ১৪ দিন কারাভোগ করতে হয়।

সর্বশেষ গত ২২ ডিসেম্বর দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার দাবীতে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির উদ্যোগে একটি সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এই সমাবেশে বিএনপির জাতীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত হয়েছিলেন। কিন্তু হবিগঞ্জের অতিউৎসাহী পুলিশ এই সমাবেশটি পন্ড করে দিতে ১২শ রাউন্ট গুলি নিক্ষেপ করেছে। অতর্কিত হামলা করে আমাদের ৩ শতাধিক নেতাকর্মীকে আহত করা হয়েছে। উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে একটি মিথ্যা ও সাজানো মামলা দায়ের করেছে। এই মামলায় আমি সহ বিএনপির ৪০ জন নেতাকর্মী ১৬ দিন কারাভোগ করে আইনী প্রক্রিয়ায় মুক্ত হয়েছি। আমি কারাগারে থাকা অবস্থায় আমার দলীয় নেতাকর্মীরা আমাকে মুক্ত করতে রাজপথে আন্দোলন করেছেন। প্রতিটি উপজেলায়, পৌরসভায়, ইউনিয়নে, ওয়ার্ডে আমাদের মুক্তির দাবীতে সভা-সমাবেশ করেছেন। আমি তাদের কাছে ঋণী হয়ে থাকব, তাদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

এসব ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতিতে বিনা অপরাধে আমি ১৩শ ৬৩ দিন কারাভোগ করেছি। প্রতিটি দুঃসময়ে হবিগঞ্জবাসী আমার পাশে থেকেছেন। কারা ফটকে হবিগঞ্জের হাজার হাজার মানুষ আমাকে স্বাগত জানিয়েছেন। হবিগঞ্জ কারাগার থেকে আমার বাসায় আসতে সোয়া ২ ঘন্টা সময় লেগেছে। আসার পথে আমি হবিগঞ্জবাসীর ভালবাসায় আমি সিক্ত হয়েছি। পথে পথে মানুষের ভালবাসার ফুল ছিটানো, আমাকে জড়িয়ে ধরে মানুষের কান্না আমি কোনো দিন ভুলব না। আমি তাদের কাছে চির কৃতজ্ঞ।

কারাগারে থাকা অবস্থায় হবিগঞ্জ শহরের অনেক মুরুব্বী ইন্তেকাল করেছেন। যাদের জানাযার নামাজে আমাকে অংশ গ্রহন করা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। আমাকে পবিত্র জুম্মাহর নামাজ থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। আমাকে পবিত্র কাবা শরিফ তওয়াফ ও নবী করিম (সা) এর রওজা মোবারক জিয়ারত করা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। পবিত্র রমজান মাসে জামায়াতের সাথে তারাবির নামাজ আদায় করা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। তারপরও কারো প্রতি আমার কোন ক্ষোভ নেই, অভিমান নেই। সব কিছু আমি মহান আল্লাহর দরবারে সোর্পদ করেছি। তিনিই উত্তম ফায়সালাকারী। ইনশাআল্লাহ, শত ষড়যন্ত্র করেও আমাকে মানুষের কাছ থেকে দুরে রাখা যাবে না। আমি মানুষের পাশেই থাকতে চাই, হবিগঞ্জবাসীর সেবা করতে চাই। এ জন্য আমার প্রতি হবিগঞ্জবাসীর দোয়া, সহযোগীতা ও ভালবাসা অতিথের মত অব্যাহত থাকবে, এই প্রত্যাশা করছি। আমি সকলের সু-স্বাস্থ, দীর্ঘায়ু ও মঙ্গল কামনা করছি।

আজকের সর্বশেষ সব খবর