সোমবার | ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

মহাপ্রতারক বাদশা, কখনো ডাক্তার-সাংবাদিক কখনো মন্ত্রীর পিএস!

প্রকাশিত : মে ১, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : সাতক্ষীরায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে আন্তঃজেলা প্রতারক চক্রের প্রধান এস এম বাদশা মিয়াকে একটি পিস্তল ও দুই রাউন্ড গুলিসহ গ্রেফতার করেছে। এসময় তার নিকট থেকে প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিবের অফিসিয়াল নকল নোটপ্যাড, সীল, সংসদ সদস্যের ডিও লেটারসহ বিভিন্ন প্রকার নিয়োগপত্র এবং জমি সংক্রান্ত জালিয়াতির কাগজ, মসজিদের চাঁদা আদায়ের ২০টি রশিদ বই ও আদায়কৃত চাঁদার নগদ ৬৮ হাজার টাকা এবং বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর থানা পুলিশ।

শনিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সাতক্ষীরা শহরের বাইপাস সড়ক এলাকার জৈনক শহিদুল ইসলামের মুদি দোকানের পাশ থেকে তাকে আটক করা হয়। এসময় তার দেওয়ার তথ্যের ভিত্তিতে দোকানের ভিতর থেকে একটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। আটক বাদশা মিয়া সাতক্ষীরা পলাশপোল এলাকার হাতুড়ে ডাক্তার নূর ইসলামের ছেলে।

আন্তঃজেলা প্রতারক চক্রের প্রধান বাদশা মিয়া প্রতারণা করে মানুষের নিকট থেকে অর্থ আদায় করা ছিল তার মূল ব্যবসা ও পেশা। তিনি কোনো ডাক্তার না হয়েও নিজেকে ডা. এসএম বাদশা মিয়া পরিচয় দিতেন। তিনি কখনও বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ ও বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও চেয়ারম্যান, আবার কখনও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পিএস, আবার প্রধানমন্ত্রীর মামলা পরিচালনাকারী, কখনো এলজিইআরডি মন্ত্রণালয়ের ডাইরেক্টর, ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতা, বিভিন্ন মন্ত্রী ও এমপিদের পরিচয় দিতেন।

তাদের সিল, প্যাড, ডিও লেটার, বাণী ইত্যাদি ব্যবহার করে নিরীহ মানুষকে চাকরি পাইয়ে দেয়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন সরকারি দফতরে চাকরিতে পদোন্নতি, বদলী এমনকি মামলার রায় পাইয়ে দেয়া, জমিজমা উদ্ধার ও দখল ইত্যাদির প্রলোভন দেখিয়ে মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিত প্রতারক বাদশা।

শনিবার (১লা মে) বিকাল সাড়ে ৩ টায় পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রেসব্রিফিং করে এসব তথ্য জানায় সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান পিপিএম বার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রশাসন সজিব খাঁন, পুলিশের সাতক্ষীরা সদর সার্কেল শামছুল আলম, সাতক্ষীরা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) বুরহান উদ্দীন, ডিবি ওসি ইয়াসিন আলম চেীধুরী,এসআই মহাসিন আলীসহ জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তা।

প্রেসব্রিফিংএ সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের আরও জানান, এস এম বাদশা মিয়া একজন মহাপ্রতারক। সে দেশী ও বিদেশী গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি, মন্ত্রী, এমপিসহ অনেকের ছবি সংগ্রহ করে তাদের ছবির সাথে নিজের ছবি লাগিয়ে (এডিট করে) নিরীহ মানুষের নিকট নিজেকে বিশ্বাসযোগ্য ও প্রভাবশালী হিসেবে উপস্থাপন করতেন। সরকারের প্রভাবশালী আমলা, প্রভাবশালী পুলিশ কর্মকর্তাদের নিকট মিথ্যা পরিচয়ে তদবীর করে হাতিয়ে নিয়েছেন লক্ষ লক্ষ টাকা।

বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি পরিচয় দিয়ে দেশের প্রতিটি জেলায় ও উপজেলায় কমিটি গঠন করে তাদের নিকট থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন বিপুল অর্থ। তাকে শহরের বাইপাস সড়ক সংলগ্ন জনৈক শফির মুদি দোকানের সামনে থেকে আটক করা হয়।

এরপর তার কাছ থেকে একটি পিস্তল, দুই রাউন্ড তাজা গুলি এবং জাল সীল এবং পুলিশ প্রধানের কাছে লেখা এক এমপির একটি ডিও লেটার, প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিবের অফিসিয়াল নোটপ্যাড, একটি প্রত্রিকার স্টিকার, ভুয়া ২৫টি ওয়ারেন্ট, মসজিদের চাঁদা আদায়ের ২০টি রশিদ বই, আদায়কৃত চাঁদার ৬৮ হাজার টাকাসহ বিভিন্ন আলামত জব্দ করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনের মামলাসহ বিভিন্ন থানায় মোট ৫টি মামলা রয়েছে।

এই বিভাগের আরো নিউজ

মহাপ্রতারক বাদশা, কখনো ডাক্তার-সাংবাদিক কখনো মন্ত্রীর পিএস!
মহাপ্রতারক বাদশা, কখনো ডাক্তার-সাংবাদিক কখনো মন্ত্রীর পিএস!
মহাপ্রতারক বাদশা, কখনো ডাক্তার-সাংবাদিক কখনো মন্ত্রীর পিএস!
মহাপ্রতারক বাদশা, কখনো ডাক্তার-সাংবাদিক কখনো মন্ত্রীর পিএস!
মহাপ্রতারক বাদশা, কখনো ডাক্তার-সাংবাদিক কখনো মন্ত্রীর পিএস!
আজকের সর্বশেষ সব খবর