বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

সিলেটে ধর্ষণচেষ্টায় ওসি: মামলার চার্জশিটে বাদির নারাজী

প্রকাশিত : নভেম্বর ১৬, ২০২১




অনলাইন ডেস্ক ॥ সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসমানীনগর উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা নাজমা বেগম। বাদিপক্ষের আইনজীবী দাখিলকৃত প্রতিবেদনের উপর নারাজী দিয়ে পুনঃতদন্তের আবেদন করেন। আদালত এই আবেদন গ্রহণ করলেও শুনানী হয়নি। সিলেট বারের একজন আইনজীবী মারা যাওয়ায় সংক্ষিপ্ত সময় বিচারকাজ চলে।

পরবর্তীতে আদালত শুনানীর তারিখ নির্ধারণ করবেন বলে জানান- বাদীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোশাহিদ আলী।

তিনি জানান- চলতি বছরের ২০ জুন ট্রাইব্যুনালের বিচারক সিনিয়র জেলা জজ মো. মুহিতুল হক এনাম চৌধুরীর আদালতে মামলাটি আমলে নিয়ে ৭ কার্যদিবসের মধ্যে অনুসন্ধানপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ওসমানীনগর উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। কিন্তু দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একাধিকবার আদালতে সময় চেয়ে দীর্ঘ প্রায় ৫ মাস পর অভিযুক্তকে রক্ষা করে একপেশে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। যার উপর মামলার বাদি নারাজী দিয়েছেন এবং পুনঃতদন্তের আবেদন করেছেন।

উল্লেখ্য, হবিগঞ্জ জেলা ডিবির সাবেক ওসি মানিকের বিরুদ্ধে চলতি বছরের ২০ মার্চ সিলেটে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা করেন ওসমানীনগরের এক তরুণী।

মামলার এজাহারে অভিযোগ করা হয়, হবিগঞ্জে কর্মরত থাকাকালীন অভিযুক্ত মানিক ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর কদমতলা এলাকায় বডি ম্যাসেজ করতে তাহলিল ফিজিওথেরাপি সেন্টারে প্রায়ই যেতেন। সেখানে পরিচয় হয় ফিজিওথেরাপিস্টের সহকারী এক তরুণীর সঙ্গে। মানিক ওই তরুণীকে বিভিন্ন সময় অসামাজিক কাজের প্রস্তাব দিতেন। মানিক তরুণীকে অশোভন ইঙ্গিত, অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে জীবন দুর্বিষহ করে তোলেন। এ বছরের ১৫ জানুয়ারি রাত ৯টায় পরিকল্পিতভাবে থেরাপি রুমে প্রবশে করে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন।

এদিকে আদালত থেকে তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসমানীনগর উপজেলা আনসার ও ভিডিপির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাজমা বেগম নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দেননি। বাদির অভিযোগ একাধিকবার আদালতে সময় চেয়ে সময়ক্ষেপন করেছেন। সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র আদালত থেকে বিলম্বে পাওয়ায় সময় নিয়েছেন বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা দাবি করেন।

এছাড়াও ওই তরুণী এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে পুলিশের আইজিপির কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ হেডকোয়ার্টার। ইতোমধ্যে তরুণীর বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধি দল সিলেটে এসে ভুক্তভোগী তরুণীর সাক্ষ্য-প্রমাণাদি গ্রহণ করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নির্যাতনের শিকার তরুণী। সূত্র: সিলেট ভয়েস

আজকের সর্বশেষ সব খবর