বুধবার | ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলছে বাস, দুর্ভোগে মানুষ

প্রকাশিত : মার্চ ৩১, ২০২১




জার্নাল ডেস্ক : করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় রাজধানীতে গণপরিবহনে বাড়তি ভাড়ায় অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আর এতে দুর্ভোগে পড়েছে মানুষ।

সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বুধবার সকাল থেকে রাজধানীতে গণপরিবহন অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলছে। কিন্তু হঠাৎ এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের ফলে অফিসগামী মানুষ পড়েছেন সীমাহীন দুর্ভোগে। অনেককে বাসে উঠতে না পেরে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে ছুটতে দেখা গেছে। অনেককে আবার দীর্ঘসময় ধরে বাসের জন্য অপেক্ষায় থাকতে দেখা যায়।

বুধবার রাজধানীর শ্যামলী, ধানমন্ডি, কলাবাগান ও বিভিন্ন স্থানে সাধারণ মানুষের এমনই ভোগান্তির চিত্র লক্ষ্য করা গেছে।

দেশে গত বছর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর অর্ধেক যাত্রী নিয়ে বাস চালানোর সিদ্ধান্ত দিয়েছিল সরকার। দুই মাস সেভাবেই চলেছিল গণপরিবহন। তখনো বাসভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছিল। বছর গড়িয়ে সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকায় ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। এর এক দফায় বলা হয়েছে, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং ধারণক্ষমতার অর্ধেকের বেশি যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। আর এই অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের ফলে অধিকাংশ যাত্রীই পড়েছে বিপদে। উঠতে পারছে না কোনো গাড়িতে।

এদিকে জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ছাড়া বাকি অফিস অর্ধেক জনবল দিয়ে পরিচালনা করার নির্দেশনা থাকলেও তা কোথাও কার্যকর হয়নি। এমন অবস্থায় বাসে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের সিদ্ধান্ত নেয়ার সমালোচনা করছেন কেউ কেউ।

শরিয়ত খান নামে একজন দুর্ভোগে পরা মানুষের ছবি দিয়ে ফেসবুকে এক পোস্টে লিখেছেন, এইটুকু কমন সেন্স নাই যে বাকি ৫০ ভাগ মানুষ হুট করে কই যাবে? অফিসে ৫০ ভাগ কর্মী নিশ্চিত না হয়ে এটা কেমন সিদ্ধান্ত?

তারেক আদনান সুজন নামের একজন চাকরীজীবি ফেসবুকে দুর্ভোগের চিত্র তুলে ধরে লিখেছেন, অফিস-আদালত সব পুরোদমে খোলা রেখে গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রীর নিয়ম করেছেন। কিন্তু দীর্ঘসময় অপেক্ষার পর বাস আসলেও একজন-দুইজন যাত্রী নিয়ে অপারগতা প্রকাশ করছে পরিবহন কর্মীরা। এমন করে সিদ্ধান্ত নিলে জাতিকে আরো ভুগতে হবে।

শ্যামলীতে পরিবহনের অপেক্ষায় থাকা যাত্রী সিকদার চয়ন জানান, সরকার গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্ত দেয়াতে আমরা এই ভোগান্তিতে পড়েছি। অফিসে যেতে অসুবিধা হয়ে যাচ্ছে। অফিসের সময় পার হয়ে গেলেও উঠতে পারছি না কোনো গাড়িতে।

অন্য এক যাত্রী বলেন, অধিকাংশ গাড়ি সাভার নবীনগর থেকে যাত্রী নিয়ে ছেড়ে আসছে। মাঝপথ থেকে আর যাত্রী তুলছে না। এখন আমরা পড়েছি বিপদে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর