মঙ্গলবার | ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

আসছে শীত, টাঙ্গুয়ায় পাখি নিধনের মহোৎসব!

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৬, ২০২০




অনলাইন ডেস্ক : জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ ভারতের মেঘালয়ের খাসিয়া, জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে সারি সারি হিজল-করচ শোভিত, পাখিদের কলকাকলি মুখরিত টাঙ্গুয়ার হাওর মাছ-পাখি এবং অন্যান্য জলজ প্রাণীর এক বিশাল অভয়াশ্রম। শীত মৌসুমে ব্যাপক পরিযায়ী পাখির আগমন ও অবস্থানে মুখরিত হতো টাঙ্গুয়া। কিন্তু সে দিন আর নেই, এ যেন এখন কেবলই গল্পকাহিনী!

প্রতি বছরের মতো শীত শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে টাঙ্গুয়ার হাওরে ঝাঁকে ঝাঁকে আসতে শুরু করতো দেশি ও অতিথি পাখি। পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠতো হাওর-বিল ও তার আশপাশের এলাকাগুলো। এ সুযোগে সৌখিন ও পেশাদার পাখি শিকারিরা বিষটোপ, জাল ও বিভিন্ন ধরনের ফাঁদ পেতে পাখি নিধনে মেতে উঠে। যে কারণে দিন দিন পাখি শিকারিদের খপ্পরে অতিথি পাখির সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে কমছে। অতিথি পাখি আসা কমে যাওয়ায় আশঙ্কাজনক হারে কমছে পর্যটকের সংখ্যাও।

টাঙ্গুয়ায় জীববৈচিত্র্যের মধ্যে অন্যতম হলো বিভিন্ন জাতের পাখি। স্থানীয় জাতের পাখি ছাড়াও শীতকালে, সুদূর সাইবেরিয়াসহ অন্যান্য দেশ থেকে আগত পরিযায়ী পাখিরও আবাস এই হাওর।প্রশাসনের নানামুখী তৎপরতায় বন্দুক দিয়ে পাখি শিকার বন্ধ হয়েছে ঠিক তবে থেমে নেই শিকারিরা! বের করা হয়েছে পাখি ধরার জন্য নানান অভিনব কৌশল। সূতা দিয়ে এক ধরণের ফাঁদ তৈরি করা ছাড়াও শিকারিরা রাতের আঁধারে হ্যাজাক লাইট দিয়ে করছে পাখি শিকার। এছাড়া পাখিদের খাবার সংকট, গাছ কেটে উজার করা, হাওরের সব জায়গায় পর্যটকদের অবাধ বিচরণ করা ও ইঞ্জিন চালিত নৌকা চলাচলের জন্য টাঙ্গুয়ার হাওরে পাখির সংখ্যা কমছে বলে মনে করেন স্থানীয়রা।

প্রতি বছরই টাঙ্গুয়ায় সমগ্র দেশের মধ্যে সবচেয়ে বিরল কয়েক জাতের পাখি দেখা যায়। এর মধ্যে রয়েছে বৈকাল তিলিহাঁস, বেয়ারের ভুঁতিহাস এবং কালোলেজ জৌরালি। দেশে দৃশ্যমান আটটি বেয়ারের ভুঁতিহাসের পাঁচটিই পাওয়া গেছে টাঙ্গুয়ায়। বিরল প্রজাতির পাখিদের মধ্যে আরো আছে কালোপাখা টেঙ্গি, মোটাঠুঁটি ফাটানো, ইয়ার, মেটে রাজহাঁস, মাছমুরাল, লালবুক গুরগুরি, পাতি লালপা, গেওয়াল বাটান, লম্বা আঙুল চা পাখি, বড় গুটি ঈগল, বড় খোঁপা ডুবুরি, কালো গির্দি প্রভৃতি।

স্থানীয়দের দাবি, হাওরের গভীর এলাকাকে পাখিদের অভয়াশ্রম হিসেবে চিহ্নিত করার পাশাপাশি এসব এলাকায় জন সাধারণের চলাচলে পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা জারি করতে হবে।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ বলেন, বন্যপ্রাণী আইনে দেশি ও অতিথি পাখি এবং প্রাণী শিকার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। টাঙ্গুয়ার হাওরে অবৈধভাবে পাখি শিকার বন্ধে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে আনসার ও পুলিশ নিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। আর রাতের আঁধারে পাখি শিকারি চক্র যখন বিশাল হাওরে প্রবেশ করে, অনেক সময় প্রশাসনের পক্ষে তাদের ঠেকাতে কঠিন হয়ে পড়ে। সর্বোপরি হাওরে এ ধরনের চক্রের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক অভিযান তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

এই বিভাগের আরো নিউজ

বিশ্বের বৃহৎ জাতীয় পতাকা তৈরি করলেন কারুশিল্পী সাইমন
শীতকালীন সবজি চাষ দেরীতে শুরু হলেও ফলন হয়েছে ভাল
আজকের সর্বশেষ সব খবর