রবিবার | ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম

হবিগঞ্জে আরবি পড়তে গিয়ে ধর্ষণে শিকার কিশোরী, অভিযুক্তকে কারাগারে প্রেরণ

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২৩




জার্নাল প্রতিবেদক ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার একটি গ্রামে আরবি পড়তে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে (১৩) বছর বয়সী এক কিশোরী। আহত অবস্থায় ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় সমালোচনার ঝড় বইছে।

এদিকে, এ ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল আহাদ (৫৫) নামে এক মোয়াজ্জিনকে আটক করে পুলিশে দেয় জনতা। পরে তার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। অভিযুক্ত আব্দুল আহাদ নিজের দোষ স্বীকার করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা হকের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। আব্দুল আহাদ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ফান্দ্রাইল গ্রামের মৃত নিলু মিয়ার পুত্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার একটি গ্রামের ওই কিশোরী প্রতিদিনের মতো বুধবার সকালেও স্থানীয় মক্তবে আরবি পড়তে যায়। এ সময় সুযোগ বুঝে ওই কিশোরীকে পাশের একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করেন মোয়াজ্জিন আব্দুল আহাদ। এক পর্যায়ে মেয়েটির চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে আব্দুল আহাদকে আটক করেন। পরে সদর থানায় খবর দেওয়া হলে এসআই ইয়াকুব আলীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যান।

তবে এ বিষয়ে মোয়াজ্জিন আব্দুল আহাদ জানান, তার বয়স ৫৫ বছর। ওই কিশোরীর বয়সী তারও সন্তান রয়েছে। গ্রামের কিছু লোক ওই মসজিদে তার বদলে অন্য মোয়াজ্জিন নিয়োগের চেষ্টা করছিলো। এ কারণে তাকে কেউ ফাঁসানো হয়েছে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও এসআই ইয়াকুব আলী জানান, হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযুক্ত আব্দুল আহাদ নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। ভিকটিম সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ডাক্তারী পরীক্ষা শেষে আদালতে জবানবন্দির জন্য তাকে প্রেরণ করা হবে।

আজকের সর্বশেষ সব খবর